ঢাকা ১০:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে ড. ইউনূসের বক্তব্য অসত্য, অপমানজনক: আইনমন্ত্রী

  • আপডেট সময় : ০২:৪০:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪
  • ২৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ও গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস দেশের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে অসত্য বক্তব্য দিয়েছেন বলে ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদলকে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বলেন, ‘তিনি অসত্য এবং বাংলাদেশের জনগণের জন্য অপমানজনক বক্তব্য বলে বেড়াচ্ছেন।’
আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে গতকাল বুধবার (১২ জুন) সচিবালয়ে ইউরোপিয়ান দুই প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে দুদক একটি মামলা করেছে। সেই মামলার ব্যাপারে আমি বলেছি, মামলাটি আদালতে চলমান রয়েছে। যে মামলা চলমান থাকে সে মামলা সম্পর্কে আইনমন্ত্রী কোনো কথা বলেন না। সেটিও তাদেরকে (ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদল) বলেছি।’ ‘আরেকটি বিষয় আমি বলেছি, তার (ইউনূস) বিরুদ্ধে ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা রয়েছে। তার একটি মামলায় তিনি আপিল বিভাগ পর্যন্ত গিয়ে হারার পরে ট্যাক্স দিয়েছেন। অন্যান্য মামলা যেগুলো রয়েছে সেগুলোও ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা।’ আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্য আসার আগে ড. ইউনূস অভিযোগ করে বলেন, তাকে হয়রানি করা হচ্ছে। বলেন, ‘অনেক হয়রানি করা হচ্ছে। আদালতে শুনানি চলাকালে একজন নিরপরাধ নাগরিকের একটা লোহার খাঁচার ভেতরে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকার বিষয়টি অত্যন্ত অপমানজনক।’ ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদলের সঙ্গে যেসব বিষয়ে আলাপ হয়েছে, সে প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, তাদের সঙ্গে শ্রম আইন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি আইন, ডেটা প্রটেকশন ও সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে কথা হয়েছে। তাদের নির্বাচন কমিশন থেকে একটি টিম এসেছিল। সেই টিমের রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা কি চিন্তাভাবনা করছি, রোহিঙ্গা ইস্যু এবং সর্বশেষ এন্টি ডিসস্ক্রিমিনেশন বেল সম্পর্কেও আলোচনা হয়েছে।’ ‘তারা জানতে চেয়েছিল আমরা কবে নাগাদ শ্রম আইন পাস করতে যাচ্ছি। বলেছি, আন্তর্জাতিক শ্রম আদালতে আমাদের বিরুদ্ধে যে নালিশ করা হয়েছিল সেই নালিশটার আমরা শেষ চাই। তাদের বলেছি শ্রম আইন নিয়ে আমরা যথেষ্ট কাজ করেছি।’ আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ‘তাদের বলেছি, শ্রম আইন সংশোধন নিয়েও কাজ করছি। আমার মনে হয় বিষয়টা শেষ করে দেওয়া উচিত। আগামী নভেম্বরে তাদের যে গভর্নিং বডির মিটিং হবে সেখানে আমাদের সমর্থন করার জন্যও তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।’

 

ট্যাগস :

যোগাযোগ

সম্পাদক : ডা. মোঃ আহসানুল কবির, প্রকাশক : শেখ তানভীর আহমেদ কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার লার রোড, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত ও ৫৬ এ এইচ টাওয়ার (৯ম তলা), রোড নং-২, সেক্টর নং-৩, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০ থেকে প্রকাশিত। ফোন-৪৮৯৫৬৯৩০, ৪৮৯৫৬৯৩১, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৭৯১৪৩০৮, ই-মেইল : [email protected]
আপলোডকারীর তথ্য

আমানতের অর্থ লুটে খাচ্ছে ব্যাংক : পিআরআই

বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে ড. ইউনূসের বক্তব্য অসত্য, অপমানজনক: আইনমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০২:৪০:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক : নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ও গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস দেশের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে অসত্য বক্তব্য দিয়েছেন বলে ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদলকে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। বলেন, ‘তিনি অসত্য এবং বাংলাদেশের জনগণের জন্য অপমানজনক বক্তব্য বলে বেড়াচ্ছেন।’
আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে গতকাল বুধবার (১২ জুন) সচিবালয়ে ইউরোপিয়ান দুই প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে দুদক একটি মামলা করেছে। সেই মামলার ব্যাপারে আমি বলেছি, মামলাটি আদালতে চলমান রয়েছে। যে মামলা চলমান থাকে সে মামলা সম্পর্কে আইনমন্ত্রী কোনো কথা বলেন না। সেটিও তাদেরকে (ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদল) বলেছি।’ ‘আরেকটি বিষয় আমি বলেছি, তার (ইউনূস) বিরুদ্ধে ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা রয়েছে। তার একটি মামলায় তিনি আপিল বিভাগ পর্যন্ত গিয়ে হারার পরে ট্যাক্স দিয়েছেন। অন্যান্য মামলা যেগুলো রয়েছে সেগুলোও ট্যাক্স না দেওয়ার মামলা।’ আইনমন্ত্রীর এমন বক্তব্য আসার আগে ড. ইউনূস অভিযোগ করে বলেন, তাকে হয়রানি করা হচ্ছে। বলেন, ‘অনেক হয়রানি করা হচ্ছে। আদালতে শুনানি চলাকালে একজন নিরপরাধ নাগরিকের একটা লোহার খাঁচার ভেতরে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকার বিষয়টি অত্যন্ত অপমানজনক।’ ইউরোপিয়ান প্রতিনিধিদলের সঙ্গে যেসব বিষয়ে আলাপ হয়েছে, সে প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, তাদের সঙ্গে শ্রম আইন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি আইন, ডেটা প্রটেকশন ও সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে কথা হয়েছে। তাদের নির্বাচন কমিশন থেকে একটি টিম এসেছিল। সেই টিমের রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা কি চিন্তাভাবনা করছি, রোহিঙ্গা ইস্যু এবং সর্বশেষ এন্টি ডিসস্ক্রিমিনেশন বেল সম্পর্কেও আলোচনা হয়েছে।’ ‘তারা জানতে চেয়েছিল আমরা কবে নাগাদ শ্রম আইন পাস করতে যাচ্ছি। বলেছি, আন্তর্জাতিক শ্রম আদালতে আমাদের বিরুদ্ধে যে নালিশ করা হয়েছিল সেই নালিশটার আমরা শেষ চাই। তাদের বলেছি শ্রম আইন নিয়ে আমরা যথেষ্ট কাজ করেছি।’ আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ‘তাদের বলেছি, শ্রম আইন সংশোধন নিয়েও কাজ করছি। আমার মনে হয় বিষয়টা শেষ করে দেওয়া উচিত। আগামী নভেম্বরে তাদের যে গভর্নিং বডির মিটিং হবে সেখানে আমাদের সমর্থন করার জন্যও তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে।’