ঢাকা ০৩:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিচার শুরু দোষী সাব্যস্ত হলে যাবজ্জীবনও হতে পারে বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে ড. ইউনূসের বক্তব্য অসত্য, অপমানজনক: আইনমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত : প্রধানমন্ত্রী অপরাধীদের ছাড়িয়ে নিতে তদবির হচ্ছে, বড় বড় জায়গার ফোন আসছে : এমপি আজিমের মেয়ে ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায়ে ব্যবস্থা বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বাংলাদেশ থেকে শিশু যৌন নিপীড়নের ২৫ লাখ রিপোর্ট গেছে যুক্তরাষ্ট্রে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য বরাদ্দ কমেছে সেন্ট্রাল এসিতে বাড়তি শুল্ক আরোপে খাত ক্ষতিগ্রস্ত হবে: ব্রামা বেশি মাংস বহনে সেরা সমাধান আরএফএল কার্গো বক্স

ঢাকায় একজনের মৃত্যু, ৬৩ জেলা মৃত্যুহীন

  • আপডেট সময় : ০২:৫৯:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত একদিনে শুধু ঢাকা জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ গত একদিনে ৬৩ জেলায় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। এছাড়া গত একদিনে শনাক্ত হয়েছেন ২৭৩ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ৩৬৮ জন।
গতকাল মঙ্গলবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়। এতে বলা হয়, গত একদিনে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৯ হাজার ৮০২ জনের। এতে শনাক্ত হন ২৭৩ জন, যাতে শনাক্তে হার ১.৩৮ শতাংশ। এ পর্যন্ত ১ কোটি ৮ লাখ ৮৮ হাজার ৭৫৮টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ২৮৪ জন, যাতে মোট শনাক্তের হার ১৪.৪৮ শতাংশ। এছাড়া, গত এক দিনে সুস্থ হয়েছেন ৩৬৮ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ ১৫ লাখ ৪০ হাজার ৯৬৫ জন।
এদিকে দেশে নতুন যে দুজন মারা গেছেন তিনি একজন নারী। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২৭ হাজার ৯৮১ জন।
২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। আর এর ১০ দিন পর প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। এরপর কয়েক মাস মৃত্যু ও শনাক্ত ঊর্ধ্বগতিতে থাকার পর গত বছরের শেষ দিকে এসে তা অনেকটা কমে যায়। চলতি বছরের প্রথম তিন মাস অনেকটা নিয়ন্ত্রণে ছিল করোনা পরিস্থিতি। তবে মার্চের শেষ দিক থেকে দেশে বাড়তে থাকে করোনার প্রকোপ। এটাকে বিশেষজ্ঞরা করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা বলে জানান।
গত এপ্রিল মাস থেকে বাড়তে থাকা করোনার প্রকোপ চরম আকার ধারণ করে জুলাইয়ে। এই মাসে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জন মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এছাড়া দিনে শনাক্তের সংখ্যাও ১৫ হাজার ছাড়ায়। তবে আগস্টের শেষ দিক থেকে করোনার প্রকোপ কমতে থাকে। সেপ্টেম্বর মাস পুরোটাই করোনার প্রকোপ নি¤œমুখী ছিল। অক্টোবরেও তা অব্যাহত রয়েছে। দেশে করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে সংস্থাটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর জোর দিয়েছে। করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন যেকোনো সময় পরিস্থিতি আরও জটিল করতে পারে বলেও সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

যোগাযোগ

সম্পাদক : ডা. মোঃ আহসানুল কবির, প্রকাশক : শেখ তানভীর আহমেদ কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার লার রোড, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত ও ৫৬ এ এইচ টাওয়ার (৯ম তলা), রোড নং-২, সেক্টর নং-৩, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০ থেকে প্রকাশিত। ফোন-৪৮৯৫৬৯৩০, ৪৮৯৫৬৯৩১, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৭৯১৪৩০৮, ই-মেইল : [email protected]
আপলোডকারীর তথ্য

ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিচার শুরু দোষী সাব্যস্ত হলে যাবজ্জীবনও হতে পারে

ঢাকায় একজনের মৃত্যু, ৬৩ জেলা মৃত্যুহীন

আপডেট সময় : ০২:৫৯:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত একদিনে শুধু ঢাকা জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ গত একদিনে ৬৩ জেলায় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। এছাড়া গত একদিনে শনাক্ত হয়েছেন ২৭৩ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ৩৬৮ জন।
গতকাল মঙ্গলবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়। এতে বলা হয়, গত একদিনে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৯ হাজার ৮০২ জনের। এতে শনাক্ত হন ২৭৩ জন, যাতে শনাক্তে হার ১.৩৮ শতাংশ। এ পর্যন্ত ১ কোটি ৮ লাখ ৮৮ হাজার ৭৫৮টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ২৮৪ জন, যাতে মোট শনাক্তের হার ১৪.৪৮ শতাংশ। এছাড়া, গত এক দিনে সুস্থ হয়েছেন ৩৬৮ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ ১৫ লাখ ৪০ হাজার ৯৬৫ জন।
এদিকে দেশে নতুন যে দুজন মারা গেছেন তিনি একজন নারী। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২৭ হাজার ৯৮১ জন।
২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। আর এর ১০ দিন পর প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। এরপর কয়েক মাস মৃত্যু ও শনাক্ত ঊর্ধ্বগতিতে থাকার পর গত বছরের শেষ দিকে এসে তা অনেকটা কমে যায়। চলতি বছরের প্রথম তিন মাস অনেকটা নিয়ন্ত্রণে ছিল করোনা পরিস্থিতি। তবে মার্চের শেষ দিক থেকে দেশে বাড়তে থাকে করোনার প্রকোপ। এটাকে বিশেষজ্ঞরা করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা বলে জানান।
গত এপ্রিল মাস থেকে বাড়তে থাকা করোনার প্রকোপ চরম আকার ধারণ করে জুলাইয়ে। এই মাসে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জন মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এছাড়া দিনে শনাক্তের সংখ্যাও ১৫ হাজার ছাড়ায়। তবে আগস্টের শেষ দিক থেকে করোনার প্রকোপ কমতে থাকে। সেপ্টেম্বর মাস পুরোটাই করোনার প্রকোপ নি¤œমুখী ছিল। অক্টোবরেও তা অব্যাহত রয়েছে। দেশে করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে সংস্থাটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর জোর দিয়েছে। করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন যেকোনো সময় পরিস্থিতি আরও জটিল করতে পারে বলেও সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।