The Daily Ajker Prottasha

টানা ছুটিতে ফাঁকা হচ্ছে ঢাকা

0 0
Read Time:4 Minute, 49 Second

নিজস্ব প্রতিবেদক : লম্বা ছুটি পেয়ে নাড়ির টানে যান্ত্রিক নগরী ঢাকা ছাড়ছেন কর্মব্যস্ত মানুষ। ফলে যানজটের নগরী এখন অনেকটাই ফাঁকা হয়ে এসেছে। ঢাকার চিরাচরিত সেই যানজট এখন দেখা যাচ্ছে না। যানজট না থাকায় মানুষ সহজেই ঢাকার ভেতরে যাতায়াত করতে পারছেন।
এবার ৩০ রোজা পূর্ণ হলে ঈদ উদযাপন হবে ৩ মে। এক্ষেত্রে ঈদুল ফিতরে দেশের সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবীরা ২৯ এপ্রিল থেকে ৪ মে পর্যন্ত টানা ছয় দিনের ছুটি পেয়েছেন। ঈদের ছুটি মূলত তিনদিন। তবে ঈদের আগে সাপ্তাহিক ছুটি ও মে দিবসের ছুটি মিলিয়ে এবার ঈদের ছুটি বেড়ে ছয়দিন হয়ে গেছে। ঈদের আগের শুক্রবার ছিল ২৯ এপ্রিল। পরদিন শনিবার ৩০ এপ্রিল। ১ মে রোববার শ্রমিক দিবসের সরকারি ছুটি। একই সঙ্গে এদিন ঈদের ছুটিও শুরু হচ্ছে। এরপর সোম ও মঙ্গলবার ঈদের ছুটি। তবে রোজা যদি ৩০টি হয় সেক্ষেত্রে বুধবারও (৪ মে) ঈদের সরকারি ছুটি থাকবে। ফলে টানা ছয়দিন ছুটি পাচ্ছেন চাকরিজীবীরা।
এদিকে, কেউ কেউ ৫ মে (বৃহস্পতিবার) বাড়তি ছুটি নিয়েছেন। এতে ৬ ও ৭ মে (শুক্র ও শনিবার) সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে মোট নয়দিন ছুটি কাটাতে পারবেন। এমন লম্বা ছুটি মেলায় গত বৃহস্পতিবার থেকেই ঢাকা ছাড়তে মানুষের ঢল নামে বাস, ট্রেন ও লঞ্চে। অবশ্য কেউ কেউ ঝামেলামুক্তভাবে গ্রামের বাড়ি যেতে আরও আগেই ঢাকা ছেড়েছেন। সবমিলিয়ে ইতোমধ্যে কয়েক লাখ মানুষ ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে পাড়ি জমিয়েছেন পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে। এতে কিছুটা হলেও যানজটের নগরী ঢাকার চিত্র বদলে গেছে। শনিবার মতিঝিল গিয়ে দেখা যায়, কর্মব্যস্ত অঞ্চলটি প্রায় ফাঁকা। মানুষের আনাগোনা যেমন কম, গাড়ির চাপও তেমনি কম। মতিঝিলে কথা হয় বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মী মো. ফিরোজের সঙ্গে। তিনি বলেন, অফিসের কাজে ধানমন্ডি থেকে মতিঝিল এসেছি। রাস্তায় কোনো যানজট নেই। সহজেই চলে আসতে পেরেছি। তিনি আরও বলেন, ঈদের ছুটিতে অধিকাংশ মানুষ ঢাকা ছেড়েছেন। আমি আগেই ঝিনাইদহের গ্রামের বাড়িতে পরিবার পাঠিয়ে দিয়েছি। আজ অফিসের কাজ শেষ করে আমি রাতে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেবো। ঢাকায় ফিরবো ৭ এপ্রিল। অনেকদিন পর এমন লম্বা ছুটি পেলাম।
রাজধানীর যানজটপূর্ণ এলাকা কাকরাইলও অনেকটাই ফাঁকা দেখা গেছে। কাকরাইল মোড়ে কথা হয় সুপ্রভাত পরিবহনের চালক মো. মান্নানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ছুটির দিন শুক্রবার ও শনিবার এই রুটে যানজট তুলনামূলক কম থাকে। গত দুই দিনে প্রচুর মানুষ ঢাকা ছেড়েছেন। এ কারণে রাস্তায় মানুষ অনেক কম। যে কারণে যানজট নেই। তিনি বলেন, স্বাভাবিক সময়ে আধাঘণ্টায় যতটুকু রাস্তা যাওয়া যায়, এখন সেই রাস্তা পার হতে পাঁচ মিনিটের বেশি লাগছে না। রাস্তা এমন থাকলে গাড়ি চালাতে ভালো লাগে। কিন্তু যানজটে আটকে থাকলে খুব বিরক্ত লাগে। মাঝে মধ্যে মনে হয় ঢাকা ছেড়ে চলে যাই। কিন্তু পেটের দায়ে ঢাকায় পড়ে আছি। যানজটের চিত্র দেখা যায়নি মালিবাগ আবুল হোটেল, রামপুরা অঞ্চলেও। রামপুরায় কথা হয় রিকশাচালক আব্বাস আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, আজকের মতো গতকালও রাস্তা এমন ফাঁকা ছিল। এখন ভিড় যা আছে সব মার্কেটে। রাস্তায় মানুষের তেমন চাপ নেই।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Average Rating

5 Star
0%
4 Star
0%
3 Star
0%
2 Star
0%
1 Star
0%

Leave a Reply

Your email address will not be published.