The Daily Ajker Prottasha

জার্মানি ম্যাচের পরেও স্টেডিয়াম পরিষ্কার করে বেরোলেন জাপানিরা

0 0
Read Time:3 Minute, 44 Second

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কাতার বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জার্মানিকে হারিয়ে বড় অঘটন ঘটিয়েছে জাপান। চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নকে হারানোর মতো অবিশ্বাস্য জয়ে আনন্দে উদ্বেলিত ‘ব্লু সামুরাই’ ভক্তরা। তবে এই খুশিতে গা ভাসিয়ে নিজেদের রীতি ভুলে যাননি তারা। আবারও স্টেডিয়াম ছাড়ার আগে গ্যালারি পরিষ্কার করে গেছেন জাপানি দর্শকরা। এর আগে, বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচেও জাপানি ভক্তদের গ্যালারি পরিষ্কার করার ছবি ও ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। জার্মানির সঙ্গে ম্যাচের পরেও দেখা গেলো সেই একই দৃশ্য। বুধবারের (২৩ নভেম্বর) ম্যাচ শেষে খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম যখন মাত্র খালি হতে শুরু করেছে, তখনই দেখা যায় কিছু জাপানি দর্শক ব্যাগ হাতে গ্যালারির ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করছেন। সবার পেছনে থেকে গ্যালারি পরিষ্কার করে বের হওয়ার এই দৃশ্য অনেকের কাছেই আশ্চর্যজনক মনে হতে পারে, তবে জাপানিরা কিন্তু তেমনটি ভাবেন না। ড্যানো নামে এক জাপানি ভক্ত বলেন, আপনারা যাকে বিশেষ কিছু বলে মনে করছেন, তা আমাদের কাছে অস্বাভাবিক কিছু নয়। তিনি বুঝতে পারেন না, মানুষ কেন ময়লা পরিষ্কার করার এই অভ্যাসকে ‘অদ্ভুত’ মনে করে। ড্যানো বলেন, আমরা যখন টয়লেট ব্যবহার করি, তা নিজেরাই পরিষ্কার করি। আমরা যখন ঘর ছেড়ে যাই, সবাই নিশ্চিত করি, এটি পরিপাটি রয়েছে। এটাই তো রীতি। আমরা একটি জায়গা পরিষ্কার না করে চলে যেতে পারি না। এটি আমাদের শিক্ষার অংশ, প্রতিদিনের শিক্ষা। জাপানি সমর্থকদের স্টেডিয়াম পরিষ্কার করে বের হওয়ার এমন দৃশ্য অনেকদিন থেকেই দেখা যাচ্ছে। এমনকি, ম্যাচে হেরে যাওয়াও তাদের এই অভ্যাসে কোনো পরিবর্তন আনে না। ২০১৮ সালে রাশিয়া বিশ্বকাপে দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলায় অতিরিক্ত সময়ের গোলে বেলজিয়ামের কাছে হেরে যায় জাপান। হৃদয়ভাঙা জাপানি ভক্তরা সেদিনও আশপাশের ময়লা-আবর্জনা তুলে নিতে ভোলেননি। জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচের আগে সায়সুকা নামে এক জাপানি সমর্থক জানান, মানুষ তাদের ঐতিহ্যের বিষয়ে কথা বলছে তা তিনি জানেন। তবে তারা এই কাজটি কোনো পাবলিসিটি বা প্রচারণার জন্য করেন না। সায়সুকাও ব্যাকপ্যাকের ভেতর কয়েকটি ব্যাগ নিয়ে এসেছেন। ম্যাচ শেষে সেগুলো ময়লা সংগ্রহের জন্য ব্যবহার করবেন তিনি। জাপানি এ তরুণী বলেন, আমাদের কাছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অনেকটা ধর্মের মতো। আমরা এটিকে খুবই মূল্যবান মনে করি।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Average Rating

5 Star
0%
4 Star
0%
3 Star
0%
2 Star
0%
1 Star
0%

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *