ঢাকা ১০:৩৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

এইচপি দলের অস্ট্রেলিয়া সফরে তিন অধিনায়ক জয়-আফিফ-আকবর

  • আপডেট সময় : ০২:৩২:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪
  • ১২ বার পড়া হয়েছে

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বাংলাদেশ হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের অস্ট্রেলিয়া সফরে চার দিনের ম্যাচের সিরিজে নেতৃত্ব দেবেন মাহমুদুল হাসান জয়। একদিনের ম্যাচের সিরিজে অধিনায়ক করা হয়েছে আফিফ হোসেনকে, টি-টোয়েন্টির দায়িত্ব পেয়েছেন আকবর আলি। অস্ট্রেলিয়ার ডারউইনে পাঁচ সপ্তাহের এই সফরে দুটি চার দিনের ম্যাচ ও দুটি একদিনের ম্যাচ খেলার পাশাপাশি একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে অংশ নেবে এইচপি দল। ৯ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে প্রাথমিক পর্বে ৬টি ম্যাচ খেলতে পারবে বাংলাদেশের দলটি। এরপর থাকছে সেমি-ফাইনাল ও ফাইনাল। তিন সংস্করণের অধিনায়কের পাশাপাশি দলও ঘোষণা করা হয় বুধবার। বাংলাদেশের হয়ে ১৩টি টেস্ট খেলা জয় থাকছেন শুধু চার দিনের ম্যাচের দলে। ১৩ টেস্ট খেলা আরেক ব্যাটসম্যান সাদমান ইসলামকেও রাখা হয়েছে এই দলে। সহ-অধিনায়ক করা হয়েছে চারটি টেস্ট খেলা ব্যাটসম্যান শাহাদাত হোসেনকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক না হলেও টেস্ট স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া পেসার রেজাউর রহমান রাজা আছেন লাল বলের এই সিরিজে।
একদিনের ম্যাচের সিরিজে সহ-অধিনায়ক হিসেবে থাকছেন কিপার-ব্যাটসম্যান আকবর আলি। টি-টোয়েন্টির সহ-অধিনায়ক মাহফুজুর রহমান রাব্বি, এই বছর যিনি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দিয়েছেন বাংলাদেশকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা থাকা বেশ কজন ক্রিকেটার আছেন তিন দলেই। এছাড়াও উঠতি অনেক প্রতিভাবান ক্রিকেটারের পাশাপাশি আছেন এই বছর যুব বিশ্বকাপে খেলা কয়েকজন ক্রিকেটারও। তিন সিরিজের দলেই জায়গা পেয়েছেন ব্যাটসম্যান পারভেজ হোসেন ইমন, আরিফুল ইসলাম, বাঁহাতি স্পিনার রাকিবুল হাসান এবং তিন পেসার মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল ও মারুফ মৃধা। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপ ও কদিন আগে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলে আসা ওপেনার তানজিদ হাসান আছেন সীমিত ওভারের দুই সিরিজেই। গত বিপিএল ও পরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখানো অভিজ্ঞ বাঁহাতি পেসার আবু হায়দারও আছেন সাদা বলের দুই সিরিজে। উঠতি লেগ স্পিনার ওয়াসি সিদ্দিকও আছে রঙিন পোশাকের দলে। আগেই জানানো হয়েছিল, এইচপি দল হলেও ‘এ’ দলের কিছু ক্রিকেটারকে রাখা হবে এসব দলে, যেহেতু অস্ট্রেলিয়ায় সফর করার সুযোগ সচরাচর আসে না। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান কদিন আগে বোর্ড সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, বিসিবির সবচেয়ে ব্যয়বহুল সফরগুলির একটি এটি। চার দিনের ম্যাচ দুটিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান ‘এ’ দল, যাদের কেতাবি নাম পাকিস্তান শাহিন্স। প্রথম ম্যাচটি শুরু ১৯ জুলাই, পরেরটি ২৬ জুলাই।
একদিনের ম্যাচের একটিতে প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের দলটিই, আরেকটিতে নর্দার্ন টেরিটরি। ম্যাচ দুটি হবে ১ ও ৬ অগাস্ট। ৯ দলের ওই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টেও আছে এই তিনটি দল। পাশাপাশি আরও আছে সমানিয়ান টাইগার্স, এসিটি কমেটস এবং বিগ ব্যাশের চার দল পার্থ স্কর্চার্স, মেলবোর্ন রেনেগেডস, মেলবোর্ন স্টার্স ও অ্যাডিলেইড স্ট্রাইকার্স। এই টুর্নামেন্ট শুরু ৯ অগাস্ট। বাংলাদেশ এইচপি দলের প্রথম ম্যাচ মেলবোর্ন রেনেগেডসের বিপক্ষে ১১ অগাস্ট। স্ট্রেংথ ও কন্ডিশনিং ক্যাম্প দিয়ে গত ২১ মে শুরু হয়েছিল এইচপি দলের অনুশীলন পর্ব। এরপর বগুড়া, রাজশাহী ও মিরপুরে হয়েছে স্কিল ট্রেনিংয়ের ঝালাই। সেই অনুশীলন পর্ব আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়েছে বুধবার। অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে দল ঢাকা ছাড়বে শনিবার। ক্যাম্পে থাকা ক্রিকেটারদের বেশ কজনই জায়গা পাননি অস্ট্রেলিয়া সফরের কোনো সংস্করণের দলেই। দল ঘোষণার পর বিসিবির ভিডিও বার্তায় নির্বাচক হান্নান সরকার বলেন, আইসিসির ভবিষ্যৎ সফর সূচীতে থাকা ২০২৭ সালে বাংলাদেশ জাতীয় দলের অস্ট্রেলিয়া সফরকে ভাবনায় রাখা হয়েছে দল গঠনের ক্ষেত্রে। “এখানে এইচপির ক্রিকেটার যেমন আছে, বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্রিকেটার আছে, জাতীয় দলের ক্রিকেটার আছে, সব মিলিয়ে আমরা দল গড়ার চেষ্টা করেছি। কারণ আমরা জানি যে, এফটিপিতে ২০২৭ সালে অস্ট্রেলিয়া সফর আছে আমাদের। সেদিক থেকে এই ছেলেদের জন্য এটা বড় সুযোগ। ওরা সেখানে গিয়ে অভিজ্ঞতা নেবে, ড্রেসিং রুম থেকে শুরু করে মাঠ, আবহাওয়া, সবকিছুর অভিজ্ঞতা হবে।”
চারদিনের ম্যাচের সিরিজের দল: মাহমুদুল হাসান জয় (অধিনায়ক), শাহাদাত হোসেন (সহ-অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, পারভেজ হোসেন ইমন, অমিত হাসান, আরিফুল ইসলাম, মাহিদুল ইসলাম, আইচ মোল্লা, রাকিবুল হাসান, শেখ পারভেজ রহমান জীবন, হাসান মুরাদ, রেজাউর রহমান রাজা, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।
একদিনের ম্যাচের সিরিজের দল: আফিফ হোসেন (অধিনায়ক), আকবর আলি (সহ-অধিনায়ক), তানজিদ হাসান, জিসান আলম, পারভেজ হোসেন ইমন, শামীম হোসেন, আরিফুল ইসলাম, ওয়াসি সিদ্দিক, রাকিবুল হাসান, শেখ পারভেজ রহমান জীবন, মাহফুজুর রহমান রাব্বি, আবু হায়দার, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।
টি-টোয়েন্টি সিরিজের দল: আকবর আলি (অধিনায়ক), মাহফুজুর রহমান রাব্বি (সহ-অধিনায়ক), তানজিদ হাসান, জিসান আলম, পারভেজ হোসেন ইমন, আফিফ হোসেন, শামীম হোসেন, আরিফুল ইসলাম, ওয়াসি সিদ্দিক, রাকিবুল হাসান, আলিস ইসলাম, আবু হায়দার, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।

যোগাযোগ

সম্পাদক : ডা. মোঃ আহসানুল কবির, প্রকাশক : শেখ তানভীর আহমেদ কর্তৃক ন্যাশনাল প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার লার রোড, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত ও ৫৬ এ এইচ টাওয়ার (৯ম তলা), রোড নং-২, সেক্টর নং-৩, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০ থেকে প্রকাশিত। ফোন-৪৮৯৫৬৯৩০, ৪৮৯৫৬৯৩১, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৭৯১৪৩০৮, ই-মেইল : [email protected]
আপলোডকারীর তথ্য

আমানতের অর্থ লুটে খাচ্ছে ব্যাংক : পিআরআই

এইচপি দলের অস্ট্রেলিয়া সফরে তিন অধিনায়ক জয়-আফিফ-আকবর

আপডেট সময় : ০২:৩২:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বাংলাদেশ হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের অস্ট্রেলিয়া সফরে চার দিনের ম্যাচের সিরিজে নেতৃত্ব দেবেন মাহমুদুল হাসান জয়। একদিনের ম্যাচের সিরিজে অধিনায়ক করা হয়েছে আফিফ হোসেনকে, টি-টোয়েন্টির দায়িত্ব পেয়েছেন আকবর আলি। অস্ট্রেলিয়ার ডারউইনে পাঁচ সপ্তাহের এই সফরে দুটি চার দিনের ম্যাচ ও দুটি একদিনের ম্যাচ খেলার পাশাপাশি একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে অংশ নেবে এইচপি দল। ৯ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে প্রাথমিক পর্বে ৬টি ম্যাচ খেলতে পারবে বাংলাদেশের দলটি। এরপর থাকছে সেমি-ফাইনাল ও ফাইনাল। তিন সংস্করণের অধিনায়কের পাশাপাশি দলও ঘোষণা করা হয় বুধবার। বাংলাদেশের হয়ে ১৩টি টেস্ট খেলা জয় থাকছেন শুধু চার দিনের ম্যাচের দলে। ১৩ টেস্ট খেলা আরেক ব্যাটসম্যান সাদমান ইসলামকেও রাখা হয়েছে এই দলে। সহ-অধিনায়ক করা হয়েছে চারটি টেস্ট খেলা ব্যাটসম্যান শাহাদাত হোসেনকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক না হলেও টেস্ট স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া পেসার রেজাউর রহমান রাজা আছেন লাল বলের এই সিরিজে।
একদিনের ম্যাচের সিরিজে সহ-অধিনায়ক হিসেবে থাকছেন কিপার-ব্যাটসম্যান আকবর আলি। টি-টোয়েন্টির সহ-অধিনায়ক মাহফুজুর রহমান রাব্বি, এই বছর যিনি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দিয়েছেন বাংলাদেশকে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা থাকা বেশ কজন ক্রিকেটার আছেন তিন দলেই। এছাড়াও উঠতি অনেক প্রতিভাবান ক্রিকেটারের পাশাপাশি আছেন এই বছর যুব বিশ্বকাপে খেলা কয়েকজন ক্রিকেটারও। তিন সিরিজের দলেই জায়গা পেয়েছেন ব্যাটসম্যান পারভেজ হোসেন ইমন, আরিফুল ইসলাম, বাঁহাতি স্পিনার রাকিবুল হাসান এবং তিন পেসার মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল ও মারুফ মৃধা। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপ ও কদিন আগে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলে আসা ওপেনার তানজিদ হাসান আছেন সীমিত ওভারের দুই সিরিজেই। গত বিপিএল ও পরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখানো অভিজ্ঞ বাঁহাতি পেসার আবু হায়দারও আছেন সাদা বলের দুই সিরিজে। উঠতি লেগ স্পিনার ওয়াসি সিদ্দিকও আছে রঙিন পোশাকের দলে। আগেই জানানো হয়েছিল, এইচপি দল হলেও ‘এ’ দলের কিছু ক্রিকেটারকে রাখা হবে এসব দলে, যেহেতু অস্ট্রেলিয়ায় সফর করার সুযোগ সচরাচর আসে না। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান কদিন আগে বোর্ড সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, বিসিবির সবচেয়ে ব্যয়বহুল সফরগুলির একটি এটি। চার দিনের ম্যাচ দুটিতে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান ‘এ’ দল, যাদের কেতাবি নাম পাকিস্তান শাহিন্স। প্রথম ম্যাচটি শুরু ১৯ জুলাই, পরেরটি ২৬ জুলাই।
একদিনের ম্যাচের একটিতে প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের দলটিই, আরেকটিতে নর্দার্ন টেরিটরি। ম্যাচ দুটি হবে ১ ও ৬ অগাস্ট। ৯ দলের ওই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টেও আছে এই তিনটি দল। পাশাপাশি আরও আছে সমানিয়ান টাইগার্স, এসিটি কমেটস এবং বিগ ব্যাশের চার দল পার্থ স্কর্চার্স, মেলবোর্ন রেনেগেডস, মেলবোর্ন স্টার্স ও অ্যাডিলেইড স্ট্রাইকার্স। এই টুর্নামেন্ট শুরু ৯ অগাস্ট। বাংলাদেশ এইচপি দলের প্রথম ম্যাচ মেলবোর্ন রেনেগেডসের বিপক্ষে ১১ অগাস্ট। স্ট্রেংথ ও কন্ডিশনিং ক্যাম্প দিয়ে গত ২১ মে শুরু হয়েছিল এইচপি দলের অনুশীলন পর্ব। এরপর বগুড়া, রাজশাহী ও মিরপুরে হয়েছে স্কিল ট্রেনিংয়ের ঝালাই। সেই অনুশীলন পর্ব আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়েছে বুধবার। অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে দল ঢাকা ছাড়বে শনিবার। ক্যাম্পে থাকা ক্রিকেটারদের বেশ কজনই জায়গা পাননি অস্ট্রেলিয়া সফরের কোনো সংস্করণের দলেই। দল ঘোষণার পর বিসিবির ভিডিও বার্তায় নির্বাচক হান্নান সরকার বলেন, আইসিসির ভবিষ্যৎ সফর সূচীতে থাকা ২০২৭ সালে বাংলাদেশ জাতীয় দলের অস্ট্রেলিয়া সফরকে ভাবনায় রাখা হয়েছে দল গঠনের ক্ষেত্রে। “এখানে এইচপির ক্রিকেটার যেমন আছে, বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্রিকেটার আছে, জাতীয় দলের ক্রিকেটার আছে, সব মিলিয়ে আমরা দল গড়ার চেষ্টা করেছি। কারণ আমরা জানি যে, এফটিপিতে ২০২৭ সালে অস্ট্রেলিয়া সফর আছে আমাদের। সেদিক থেকে এই ছেলেদের জন্য এটা বড় সুযোগ। ওরা সেখানে গিয়ে অভিজ্ঞতা নেবে, ড্রেসিং রুম থেকে শুরু করে মাঠ, আবহাওয়া, সবকিছুর অভিজ্ঞতা হবে।”
চারদিনের ম্যাচের সিরিজের দল: মাহমুদুল হাসান জয় (অধিনায়ক), শাহাদাত হোসেন (সহ-অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, পারভেজ হোসেন ইমন, অমিত হাসান, আরিফুল ইসলাম, মাহিদুল ইসলাম, আইচ মোল্লা, রাকিবুল হাসান, শেখ পারভেজ রহমান জীবন, হাসান মুরাদ, রেজাউর রহমান রাজা, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।
একদিনের ম্যাচের সিরিজের দল: আফিফ হোসেন (অধিনায়ক), আকবর আলি (সহ-অধিনায়ক), তানজিদ হাসান, জিসান আলম, পারভেজ হোসেন ইমন, শামীম হোসেন, আরিফুল ইসলাম, ওয়াসি সিদ্দিক, রাকিবুল হাসান, শেখ পারভেজ রহমান জীবন, মাহফুজুর রহমান রাব্বি, আবু হায়দার, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।
টি-টোয়েন্টি সিরিজের দল: আকবর আলি (অধিনায়ক), মাহফুজুর রহমান রাব্বি (সহ-অধিনায়ক), তানজিদ হাসান, জিসান আলম, পারভেজ হোসেন ইমন, আফিফ হোসেন, শামীম হোসেন, আরিফুল ইসলাম, ওয়াসি সিদ্দিক, রাকিবুল হাসান, আলিস ইসলাম, আবু হায়দার, মুকিদুল ইসলাম, রিপন মন্ডল, মারুফ মৃধা।