রক্ত পরীক্ষা, এক্সরে আর নাপা দিয়েই আনোয়ার খান মডার্ন নিলো দেড় লাখ টাকা!

রক্ত পরীক্ষা, এক্সরে আর নাপা দিয়েই আনোয়ার খান মডার্ন নিলো দেড় লাখ টাকা!

Last Updated on

বিশেষ সংবাদদাতা :  ২৩ মে করোনা শনাক্ত হওয়ার পর রাজধানীর আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি হন সাইফুর রহমান। মঙ্গলবার (২ জুন) তিনি হাসপাতাল থেকে রিলিজ নেন। এই ১১ দিনে তার বিল ধরা হয় এক লাখ ৭০ হাজার ৮৭৫ টাকা। বিল দিতে না পারায় হাসপাতাল থেকে ডিসচার্জের কাগজ নিয়েও বের হতে পারছিলেন না তিনি। রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত হাসপাতালে আটকে রাখা হয় তাকে। শেষ পর্যন্ত অনেক অনুরোধ করে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান সাইফুর।

সাইফুর আজকের প্রত্যাশাকে বলেন, ‘আমার কোনও অপারেশন করা হয়নি। আইসিইউতে ছিলাম না। অক্সিজেন দেওয়াও লাগেনি। কেবল নাপা আর গ্যাসের ট্যাবলেট দিয়েছে তারা। বাকি ওষুধ বাইরে থেকে কিনে খেয়েছি।’

নীতে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে যে ১৩টি হাসপাতাল রয়েছে তার মধ্যে বেসরকারি হাসপাতালের তালিকায় রয়েছে আনোয়ার খান মডার্ন  হাসপাতাল। ১৬ মে হাসপাতালটির ২০০ বেডের কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড ভবনের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। সেদিন তিনি বলেন, ‘রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সমৃদ্ধ ২০০ বেডের এই হাসপাতালটি মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এই হাসপাতালে ২০০টি নতুন বেড, ১০টি আইসিইউ, ১০টি এইচডিও ও পাঁচটি ভেন্টিলেটর রয়েছে। পাশাপাশি কোভিড-১৯ টেস্টের জন্য এখানে পিসিআর মেশিনেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

জাহিদ মালেক আরও বলেন, ‘মাত্র ১৯ দিনে হাসপাতালটি প্রস্তুত করে দিয়ে কর্তৃপক্ষ সরকারের কাজ সহজ করে দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে কোভিড প্রজেক্টে আমরা এখন নেই। আমাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চলবে হাসপাতাল। যে কারণে বিলটা করতে আমরা বাধ্য হচ্ছি।’

আনোয়ার খান মেডিক্যাল কলেজ সরকারি চুক্তি বাতিল করেছে বলে রোগীকেই হাসপাতালের সব খরচ বহন করতে হবে বলে হাসপাতালটি থেকে জানানো হয়েছে—এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে হাবিবুর রহমান বলেন, ‘৩১ মে পর্যন্ত সরকারি নিয়মে চলতে হবে তাদের। মূল কথা হচ্ছে, করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে করোনা রোগী থেকে টাকা নেওয়া যাবে না। তবে ১ জুন থেকে তারা বিল নিতে পারবে।’

 

Please follow and like us:
3
20
fb-share-icon20
Live Updates COVID-19 CASES