২০ শতাংশ রেস্তোরাঁ বন্ধ হওয়ার পথে

২০ শতাংশ রেস্তোরাঁ বন্ধ হওয়ার পথে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সংক্রমণের ভয়ে কমেছে ক্রেতা। স্বাস্থ্যবিধির কারণে বেশি গ্রাহককে বসতেও দেওয়া যাচ্ছে না। এদিকে লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন ছিল বন্ধ। করোনায় রেস্তোরাঁ ব্যবসা পার করছে কঠিন সময়।
বেশিরভাগ রেস্তোরাঁ মালিকই এখন ব্যক্তিগত তহবিল দিয়ে কোনোমতে চালু রেখেছেন। যারা তা-ও পারছেন না তারা বন্ধ করে দিয়েছেন। কেউ বিক্রি করে দিয়েছেন প্রতিষ্ঠান।

রাজধানীতে কী পরিমাণ রেস্তোরাঁ বন্ধ হয়ে গেছে তার সঠিক হিসাব নেই। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় প্রায় ১০ হাজার রেস্তোরাঁ আছে। সারাদেশে আছে ৬০ হাজারের ওপরে। বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি বলছে, করোনার কারণে অন্তত ২০ শতাংশ রেস্তোরাঁ বন্ধ হওয়ার পথে।
রেস্তরাঁ২৬ মার্চ থেকে ঘোষণা করা হয় সাধারণ ছুটি। অনেক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বন্ধ হয়ে যায় হোটেল-রেস্তোরাঁও। রোজার সময় ২৮ এপ্রিল থেকে ইফতার বিক্রির অনুমতি দেয় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। তবে শর্ত ছিল কেউ ফুটপাতে পসরা সাজাতে পারবে না। রেস্তোরাঁয় বসে ইফতারও খেতে পারবে না। এরপর থেকেই হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো মারাত্মক চাপে পড়ে। আয় শূন্যের ঘরে থাকলেও মাস শেষে ভাড়া এবং কর্মচারীর বেতন জোগাতে এখনও হিমশিম মালিকরা।
রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুক্রবার ছাড়া ক্রেতাদের আনাগোনা নেই বললেই চলে। করোনার কারণে বলা যায় ব্যবসা অর্ধেকে নেমে এসেছে। ভাড়া, বেতনসহ খরচের একটা বড় অংশই আসছে মালিকের জমানো টাকা থেকে।
ধানমন্ডির সাতমসজিদ রোডের জেনিয়াল ব্যুফের স্বত্বাধিকার মো. মাহবুব জামান জানান, ‘আমাদের এখানে ১১০ জনের বসার ব্যবস্থা ছিল। করোনার কারণে তা কমিয়ে ৬০ করা হয়েছে। তার ওপর নেই বিক্রিবাট্টা। শুধু শুক্রবার একটু অতিথি আসে।’
তিনি আরও বলেন, ‘রেস্তোরাঁ ব্যবসা খারাপ হওয়ার সুযোগে এখন ক্রেতারা ফিক্সড দামের ওপর ডিসকাউন্ট চেয়ে বসে। আমরা ৫ শতাংশ দিলে ২০ শতাংশ চায়। অন্যান্য জায়গায় ভাড়া কমানোর সুযোগ থাকলেও তো আমাদের তা নেই। আগে ভাড়া দিতাম ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা, এখন ১ লাখ ২০ হাজার। এর সঙ্গে আবার বিদ্যুৎ বিল ও কর্মচারীদের বেতন আছে। আগস্টে আমার ২ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। পরের মাসেও লস ছিল।’
ম্যাডশেফের ব্রাঞ্চ ইনচার্জ ইশান আল মামুন জানান, তাদের আসন সংখ্যা ছিল ৬০, কিন্তু করোনার কারণে তা কমিয়ে ৩৫ করা হয়েছে। বিক্রি কমেছে ৩০ শতাংশ। স্বাস্থ্যবিধির জন্য যোগ হয়েছে বাড়তি খরচ।
ধানমন্ডির গুহা দ্য কেভ কিচেনের স্বত্বাধিকার রাহাত হাবিব বলেন, ফেব্রুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত আমরা মোটামুটি লসের মধ্যেই আছি। পকেট থেকে টাকা দিয়ে চলছি। এই বছর প্রায় ৭ লাখ টাকার মতো ক্ষতি হয়েছে। ৪ মাস লকডাউন থাকলেও বাড়িওয়ালাকে ভাড়া দিতেই হয়েছে।
হার্ট ওয়ার্ল্ডের পরিচালক তাহসিন রব প্রিয়া বলেন, আমরা লকডাউনের আগে থেকেই ডাইনিং বন্ধ করে দিয়েছিলাম। এরপর আমরা হোম ডেলিভারি দেওয়া শুরু করলাম অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলো ব্যবহার করে। প্রথম ২-৩ মাস রেস্তোরাঁ পুরোপুরি বন্ধ ছিল। ওই সময় নিজেদের সুরক্ষিত রেখে কীভাবে রেস্টুরেন্ট চালাবো সে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আবার অর্ধেক স্টাফকে অর্ধেক সবেতনে ছুটিও দিয়েছি। তিনি আরও বলেন, লকডাউন খুলে দেওয়ার প্রথম মাসে আমরা ক্রেতাদের একটা বড় ধাক্কা পেয়েছি। কিন্তু পরের মাস থেকে আবার কমতে শুরু করেছে। তখন ভেবেছিলাম এভাবে চললে হয়তো ৩ মাস পর সামলে উঠতে পারবো। কিন্তু তেমনটি হয়নি। অনলাইনে ১০ শতাংশের মতো অর্ডার পেতাম। এখন ডাইনিং খুলে দেওয়ার পর সেটা আরও কমেছে। এর বড় কারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ। এ ব্যবসার বড় ক্রেতা কিন্তু তরুণরা। তারপরও এখন কোনোমতে টিকে আছি। বাড়িওয়ালা ভাড়া কমিয়েছেন। কিস্তিতে ভাড়া পরিশোধের সুবিধাও রেখেছেন। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, শুধু ধানমন্ডিতেই অনেক রেস্তোরাঁ বন্ধ হয়েছে। কেউ কেউ মালিকানা হস্তান্তর করেছেন। বন্ধ হয়ে যাওয়ার তালিকায় আছে ইউ কি সেন্ট্রাল, ক্যাফে ফিফটি। এ ছাড়া ট্রিট ক্যাফে ও ক্যাফে দ্রুমের মালিকানা পরিবর্তন হয়েছে। এ সবই হয়েছে করোনাকালীন।
রেস্তরাঁগত ২৮ জুন এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি সরকারের কাছে পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো ছিল ১। সাধারণ ছুটি নিয়ে গত ২৮ মে জারি করা প্রজ্ঞাপন সংশোধন করে খাদ্য, খাবার ও সেবার সঙ্গে ‘হোটেল-রেস্তোরাঁ’ খাত স্পষ্ট করা, ২। করোনাকালে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির যে বিল জমবে তা ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে প্রতি মাসে ১০ শতাংশ হারে আদায় করা এবং বকেয়া বিলের জন্য সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করা, ৩। পোশাক খাতের মতো স্বল্প সুদে রেস্তোরাঁ মালিকদেরও ঋণ সহায়তা দেওয়া, ৪। নি¤œ আয়ের মানুষকে যে সহায়তা দিচ্ছে, তার আওতায় রেস্তোরাঁ শ্রমিকদেরও নিয়ে আসা এবং ৫। বাজেটে করোনা প্রকোপকাল ও প্রভাবকালের জন্য রেস্তোরাঁ ও দই-মিষ্টি খাতকে ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দ দেওয়া।
বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব এম. রেজাউল করিম সরকার বলেন, ‘সারাদেশে ২০ শতাংশ রেস্তোরাঁ বন্ধের পথে। করোনার কারণে আমাদের মূল সমস্যা ছিল আস্থাহীনতা। ক্রেতারা সংক্রমণের ভয়ে রেস্তোরাঁয় আসা বন্ধ করে দিয়েছিল। সমস্যাগুলো আমরা সরকারকে জানিয়েছিলাম। আমাদের সহযোগিতা করার জন্য বলেছিলাম। কিন্তু তা পাইনি। প্রধানমন্ত্রী প্রণোদনা ঘোষণা করলেও ব্যাংক আমাদের তা দিতে চায় না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের শ্রমিকরা কিছু পায়নি। আমরাও ঋণ নিয়ে যে কিছু করবো সে উপায় নেই।’

Please follow and like us: