শনি. সেপ্টে ২১, ২০১৯

সাদের বিরুদ্ধে লড়বেন চাচাত ভাই আসিফ

সাদের বিরুদ্ধে লড়বেন চাচাত ভাই আসিফ

Last Updated on

রংপুর প্রতিনিধি : রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে এরশাদ পুত্র সাদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে নেমেছেন তারই আপন চাচাতো ভাই আসিফ।
গতকাল সোমবার আওয়ামীলীগ, জাতীয় পার্টি, বিএনপিসহ ৯ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন এই আসনে। জাপা’র অপর প্রার্থী মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আহমেদ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। অপরদিকে মহানগর জাপার সভাপতি সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাফার অভিমান এখনো ভাঙ্গেনি। তিনি সাদ এরশাদের পক্ষে কাজ করবেন না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। এদিকে বিএনপি’র প্রার্থী রিটা রহমানের প্রতিপক্ষ হিসেবে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জামা দিয়েছেন মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি কাওছার জামান বাবলা।
সোমবার রিটার্নিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিএম শাহাতাব উদ্দিনের কাছে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তারা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী এরশাদপুত্র রাহগীর আল মাহি সাদ ওরফে সাদ এরশাদ, বিএনপি মনোনীত রিটা রহমান, খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মন্ডল, গণফ্রন্টের কাজী শহিদুল্লাহ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির রংপুর জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম এবং বাংলাদেশ কংগ্রেস দলের মোহাম্মদ একরামুল হক। এছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এরশাদের ভাতিজা রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সদস্য সচিব ও সাবেক সংসদ সদস্য হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ ওরফে আসিফ শাহরিয়ার এবং মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি কাওছার জামান বাবলা মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

রংপুর-৩ আসনে সাদ এরশাদকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণার পর, দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এ অবস্থায় সিটি মেয়র ও মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা সাদ এরশাদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে স্থানীয়দের মধ্য থেকে যে কোন একজনকে প্রার্থী দেয়ার আহ্বান জানান। কিন্তু কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে সাদ এরশাদকেই জাপা প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। এতে ক্ষুব্ধ হন মোস্তফা।

তিনি তার আগের অবস্থান পরিবর্তন না করে বলেন, আমি এই প্রার্থীর হয়ে কাজ করতে পারবো না। যারা তাকে মনোনয়ন দিয়েছেন তারা কাজ করবেন। জনগণ ভোট দিলে নির্বাচিত হবেন না দিলে হবেন না। এটা নিয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই।

এদিকে এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহারিয়ার আসিফ বলেন, বহিরাগত সাদ বা যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হোক না কেন আমি জয়ী হবো। দলের নেতারা বারবার ভুল করছেন। জাতীয় পার্টির নেতারা তার প্রতি অন্যায় আচরণ করবেন বুঝতে পেরেই তিনি দলীয় মনোনয়ন চাননি। এমনকি জাপার পার্লামেন্টারি বোর্ডেও আবেদন পর্যন্ত করেননি। তিনি দাবি করেন বেশিরভাগ নেতাকর্মী তার পক্ষে রয়েছে। বিজয় তার হবেই।

রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও রংপুর মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসীর। দুপুরে নগরীর সেন্ট্রাল রোডস্থ জাতীয় পার্টির কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচনে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

অনেকটা অভিমান নিয়ে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি করতে গিয়ে আমি বেশ কয়েকবার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছি। আমি ভোট করতে চাইনি। সবার অনুরোধ, উৎসাহ ও পরামর্শে আমি নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। কিন্তু এর মধ্যে আমাকে মৃত্যুর হুমকি দেয়া হয়েছে। মেরে ফেলার ভয় দেখানো হচ্ছে। আমাকে তারা ভোট করতে দিলো না। হয়তো আমাকে আর দলেও রাখবে না। আমাকে দল থেকে বের করে দেবে।

ইয়াসির আরো বলেন, আমিতো নিজের ইচ্ছেতে ভোট করতে চাইনি। আমার তো টাকা পয়সা নেই। আমি ভোট করলে কীভাবে জিতবো। তাই নির্বাচন থেকে সরে যাচ্ছি। আমাকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। এ সময় কেঁদে ফেলেন ইয়াসির। সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

Please follow and like us:
2