মঙ্গল. জুলা ১৬, ২০১৯

সশস্ত্র ড্রোন দিয়ে তেলের পাইপলাইনে হামলা

সশস্ত্র ড্রোন দিয়ে তেলের

Last Updated on

প্রত্যাশা ডেস্ক : সৌদি আরব গতকাল বুধবার বলেছে, তাদের দুটি তেলের ট্যাংকার এবং একটি প্রধান পাইপ লাইনের ওপর হামলা কেবল তাদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করতে চালানো হয়নি। বরং সারা বিশ্বের তেল সরবরাহ ব্যাহত করতে এই হামলা চালানো হয়েছে।
বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, ইরান সমর্থিত ইয়েমেনি একটি বিদ্রোহী দলের ড্রোন হামলার পর মঙ্গলবার দেশটির একটি প্রধান তেলের পাইপ বন্ধ রাখা হয়েছে। রোববার আমিরাতের উপকূলে চারটি তেলের ট্যাংকারে অন্তর্ঘাতমূলক হামলার পর ড্রোন হামলার এই ঘটনায় উপসাগরীয় অঞ্চলে উত্তেজনা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।
‘এসব সন্ত্রাসী হামলা ও অন্তর্ঘাত শুধু এই রাজ্যকে লক্ষ্য করেই চালানো হয়নি, বরং এগুলো বিশ্বে তেলের সরবরাহ এবং আন্তর্জাতিক অর্থনীতির ওপর হামলা,’ মঙ্গলবার জেদ্দায় সৌদির রাজা সালমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকের শেষে জানানো হয়।
গত মঙ্গলবারের ড্রোন হামলায় সৌদি রাজ্যের পূর্ব-পশ্চিম বরাবর স্থাপিত পাইপলাইনে আঘাত হানা হয়েছে। এই পাইপলাইন দিয়ে দিনে ৫০ লাখ গ্যালন অপরিশোধিত তেল পরিবহন করা যায়।
হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দেয়া হলে তেল পরিবহনের বিকল্প পথ হিসেবে এই পাইপলাইনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা মঙ্গলবারের হামলার দায় স্বীকার করে বলেছে, এটা ছিল আসাদ সরকারের সমর্থনে সৌদি আরব ও তার মিত্রদের কৃত ‘অপরাধের’ জবাব। তবে, রোববার ওমান সাগরে চারটি তেলের ট্যাংকারের ওপর অন্তর্ঘাতমূলক হামলার কোনও ব্যাখ্যা এখনও পাওয়া যায়নি। ওই হামলায় সৌদির আল-মারজুকা এবং আমজাদ নামের দুটি ট্যাংকারের উলে¬খযোগ্য ক্ষতি হলেও কেউ হতাহত হয়নি বা ট্যাংকারের তেল সাগরে গিয়ে পড়েনি বলে জানান জ্বালানি মন্ত্রী খালিদ আল-ফালি। সৌদি বা আমিরাত কেউই ওই হামলার ধরন সম্পর্কে এখনও বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

Please follow and like us:
0