মঙ্গল. জুন ১৮, ২০১৯

শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় ও ফাউন্ডেশনের বর্ণাঢ্য বর্ষবিদায় ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠান

শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় ও ফাউন্ডেশনের বর্ণাঢ্য বর্ষবিদায় ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠান

Last Updated on

কি তরুণ কি প্রবীণ’ সবাই মেতেলিছল বাংলা নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার বর্ণিল উচ্ছ্বাসে। সর্বত্র ঐ একই গান একই প্রস্তুতি; পুরাতনকে বিদায় ও নতুনকে বরণ করে নেয়ার। যার ব্যাত্যয় ঘটেনি শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় ও ফাউন্ডেশনেও। শান্ত-মারিয়াম ফাউন্ডেশন, শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় ও সুন্দরবন গ্রুপসহ সকল অঙ্গ প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে গত ১৩ ও ১৪ এপ্রিল ২ দিন ব্যাপী এক বর্ণাঢ্য বর্ষবিদায় ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বর্র্ষ বিদায় তথা চৈত্র সংক্রান্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় শান্তনিবাস, শ্যামলবাগ, উত্তরখান ঢাকা ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় বিশ্ববিদালয়ের কলমা ক্যাম্পাস সাভার-এ।
উক্ত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। উভয় অনুষ্ঠানেই শান্ত-মারিয়াম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইমামুল কবীর শান্ত ও শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী মোঃ মফিজুর রহমান, রেজিষ্ট্রার স্থপতি হোসনেয়ারা রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষকবৃন্দ ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারী, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবক-সহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এ উপলক্ষে শান্ত-মারিয়াম একাডেমি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি’র শিক্ষার্র্থিদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা, শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির সঙ্গীত ও নৃত্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের এবং কালচারাল ফোরামের সাংস্কৃতিক পরিবেশনাসহ বান্দরবানের বম উপজাতির সাংস্কৃতিক জোটের পরিবেশনা, রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী গম্ভীরা ও গাঢ়ো কালচারাল একাডেমি (ময়মনসিহ) ও অতিথি শিল্পীদের বিভিন্ন পরিবেশনাসহ বাউল সঙ্গীত অনুষ্ঠিত হয়। আর এভাবেই বাংলার ঐতিহ্যগাঁথা বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান- নৃত্য, বাউল গান ও অন্যান্য সঙ্গিত পরিবেশন ও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে স্মৃতি বিজরীত ১৪২৫ বঙ্গাব্দকে বিদায় জানানো হয়।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন-১৪ এপ্রিল-১৪২৬’ পহেলা বৈশাখ, রোববার, সকাল ১০ টায় শান্ত-মারিয়াম একাডেমী, শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির কালচারাল ফোরাম, সঙ্গীত ও নৃত্য বিভাগ ও বিভিন্ন ফ্যাকাল্টির শিক্ষার্থিগণ সমবেত ও একক সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করে। এরপর গম্ভীরা (রাজশাহী) ও গাঢ়ো কালচারাল একাডেমি (ময়মনসিংহ) সমবেত ও একক সঙ্গীত এবং ঐতিহ্যবাহী নৃত্য পরিবেশন করে। সর্বশেষ ছিল সিলেট থেকে আগত নৃৃত্য গুরু উজা কোলন সিং এর দলের ঐতিহবাহী মনিপুরী নৃত্য পরিবেশন। এভাবে জমকালো বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বাউল সঙ্গীত পরিবেশন ও মুড়ি-মুড়কি-বাতাসা-শরবত সহ বিভিন্ন মজাদার খাইদাই তথা আনুষ্ঠানিকতায় উদযাপিত হয় ১৪২৬ বঙ্গাব্দকে সাদরে বরণ করে নেয়ার বর্ণীল অনুষ্ঠান। বিজ্ঞপ্তি।

Please follow and like us:
2