মহামারীর ধাক্কায় লোকসানে বাটা

মহামারীর ধাক্কায় লোকসানে বাটা

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : হঠাৎ ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ জুতার প্রস্তুতকারক কোম্পানিটিকে বড় ধাক্কা দিয়েছে। পুঁজিবাজারে চামড়া খাতে তালিকাভুক্ত বহুজাতিক এই কোম্পানি মহামারীর মধ্যে বড় ক্ষতির মুখে পড়েছে; ব্যাপক লোকসানের সঙ্গে কোম্পানির নগদ প্রবাহ ঋণাত্মকে নেমেছে। মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে চলতি হিসাব বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির আর্থিক বিবরণীর যে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে, তা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, চলতি হিসাব বছরের এপ্রিল-জুন সময়ে বাটা সু কোম্পানি শেয়ারপ্রতি ৫৩ টাকা ৭৪ পয়সা লোকসান করেছে, যেখানে আগের বছর একই সময়ে কোম্পানির ১৫ টাকা ৮৫ পয়সা মুনাফা হয়েছিল। বছরের প্রথম ছয় মাসে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি লোকসান দাঁড়িয়েছে ৫১ টাকা ৬৭ পয়সা, যেখানে আগের বছরের একই সময় ১৯ টাকা ১১ পয়সা মুনাফা করেছিল কোম্পানিটি। দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে বাটা সু কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নগদ প্রবাহ কমে ঋণাত্মক ৫ টাকা ৮৫ পয়সায় নেমেছে, যেখানে আগের বছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি নগদ প্রবাহ ছিল ৪৩ টাকা ৪৮ পয়সা। লোকসানের কারণ ব্যাখ্যা করে বাটা সু বলছে, বরাবরের মতো এবারের ঈদুল ফিতর সামনে রেখেও তাদের বড় বিক্রির পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বিক্রি হয়নি বললেই চলে। এই কারণে রাজস্ব মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আর ঈদে বিক্রির জন্য এবছরের শুরু থেকে প্রচুর পরিমাণে পণ্য তৈরি করে গুদামজাত করে রাখছিল কোম্পানিটি। কিন্তু ব্যাপক পরিমাণ পণ্য অবিক্রিত থাকায় নগদ প্রবাহ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাটা সু বলছে, সারা বছরে যে বিক্রি হয় তার ২৫ শতাংশ আসে রোজার ঈদকে কেন্দ্র করে। ভাল মানের ও বেশি দামের পণ্যগুলো এসময় বিক্রি হয়। ফলে লাভও থাকে বেশিগুণে। কিন্তু এবার এপ্রিল-জুন সময়ে (দ্বিতীয় প্রান্তিক) যে বিক্রি পরিমাণ বিক্রি হয় তা গত বছরের এই সময়ে বিক্রির মাত্র ১৫ শতাংশ। বিক্রি নগন্য হলেও এসময়ে স্থায়ী খাতগুলোর জন্য যথারীতি ব্যয় হয়েছে; বাড়তি জুতা তৈরির জন্য বাড়তি মজুরি দিতে হয়েছে। কিন্তু বিক্রি কম হওয়ায় খরচের টাকা উঠে আসেনি; ফলে কোম্পানি লোকসানে চলে গিয়েছে।

Please follow and like us:
3
20
fb-share-icon20
Live Updates COVID-19 CASES