রবি. এপ্রি ২১, ২০১৯

ভুট্টার উপকারিতা

ভুট্টার উপকারিতা

Last Updated on

লাইফস্টাইল ডেস্ক : রাস্তাঘাটে বের হলেই চোখে পড়ে ঠেলাগাড়িতে পোড়ানো ভুট্টার বেচাকেনা। ভুট্টা কেবল খেতেই মজা নয়, রয়েছে নানান পুষ্টিগুণ। খাদ্য ও পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটের প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে ভুট্টার উপকারিতা সম্পর্কে জানানো হল।
ভুট্টার পুষ্টি গুণ : প্রতি ১০০ গ্রাম মিষ্টি ভুট্টায় ১৯ গ্রাম কার্বোহাইড্রেইট, ২ গ্রাম আঁশ, ৩ গ্রাম প্রোটিন, ১.৫ এর কম চর্বি এবং ৮৬ ক্যালরি থাকে। অন্যদিকে ১০০ গ্রাম পপকর্ণে ৯২ ক্যালরি, ২.৯ গ্রাম প্রোটিন, ১৮.৭ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট এবং ১ গ্রাম চর্বি থাকে।
ভুট্টা নির্বাচন করার উপায় : সবসময় সোজা , ভরাট এবং খানিকটা সোনালি রংয়ের ভুট্টা বাছাই করতে হবে। বিবর্ণ হয়ে গেছে এমন ভুট্টা এড়িয়ে চলুন।
সংরক্ষণের উপায় : প্লাস্টিকের ব্যাগে মুড়িয়ে ভুট্টা রাখতে হবে। এবং তা রেফ্রিজারেইটরে এক সপ্তাহ সংরক্ষণ করা যাবে। অপরিপক্ক ভুট্টা চাটনি করেও সংরক্ষণ করা যায়।
স্বাস্থ্যোপকারিতা : অ্যানিমিয়ার ঝুঁকি কমায়: ভুট্টা লৌহ সমৃদ্ধ যা রক্তের লোহিত কণার প্রয়োজনীয় খনিজের চাহিদা পূরণ করে। এভাবেই এটা অ্যানিমিয়ার ঝুঁকি কমায়।
রক্ত চাপ কমায়: এতে পাওয়া যায় ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস যা উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমায়।
রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ: ভুট্টায় থাকা ফাইটোকেমিকেল শরীরে ইন্সুলিনের শোষণ ও নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণ করে, যা রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।
শক্তি বর্ধক: মিষ্টি ভুট্টা বা ‘সুইট কর্ন’ আঁশ জাতীয় শস্য যাতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেটের যৌগ। এটা দেরিতে হজম হয় এবং কাজের শক্তির উৎস হিসেবে কাজ করে।
দৃষ্টি শক্তি বাড়ায়: হলুদ ভুট্টা খাওয়া এক টন বিটা ক্যরোটিন সরবারহ করে। যা চোখ ও ত্বকের জন্য খুবই ভালো।
পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া : ‘ইনজেস্টিবল প্রোটিন’ থাকায় এটা অনেক সময় অ্যালার্জির কারণ হতে পারে। পরিমাণে বেশি খাওয়া হলে হজমে সমস্যা দেখা দিতে পারে। কাঁচা ভুট্টা খেলে ডায়রিয়া হতে পারে। ভুট্টা খাওয়ার কারণে ঘুম ঘুম ও নিস্তেজভাব দেখা দিতে পারে। অতিরিক্ত ভুট্টা খাওয়া ওজন বাড়ার কারণ।

Please follow and like us:
0