শুক্র. সেপ্টে ২০, ২০১৯

বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে চিনি ও গুঁড়ো দুধ

বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে চিনি ও গুঁড়ো দুধ

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসছে অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবের পরদিন রাজধানীতে চিনি ও গুঁড়ো দুধের দাম বেড়েছে। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনে বাজার ঘুরে মিরপুর, কারওয়ান বাজার ও মহাখালীর কাঁচা বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। বাজেটে আমদানি শুল্ক ও ভ্যাট বাড়ানোর প্রস্তাব করায় যেসব পণ্যের দাম বাড়েতে পারে তার মধ্যে রয়েছে-প্যাকেটজাত তরল দুধ, গুঁড়া দুধ, চিনি, গ্লুকোজ, মধু, অলিভ অয়েল, প্রক্রিয়াজাত মিক্সড খাদ্য, প্লাস্টিক ও অ্যালুমিনিয়ামের তৈজসপত্র, সয়াবিন তেল, পাম অয়েল, সানফ্লাওয়ার তেল ও সরিষার তেল। তবে অন্য পণ্যগুলোর মধ্যে ভোজ্য তেল ও চিনি আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে। কারওয়ান বাজারের দোকানি শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘চিনি, সয়াবিন তেলসহ অন্যান্য পণ্য আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে। বাজারে বাজেটের তেমন নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। ‘তবে বাজেট ঘোষণার আগে থেকেই মার্কস, ফ্রেশ, ডিপ্লোমাসহ অন্যান্য গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা করে বেড়েছে। মার্কসের এককেজির প্যাকেট ৪৬০ টাকা, ফ্রেশের ৪৫০ টাকা এবং ডিপ্লোমার এককেজির প্যাকেট ৫৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।’ খোলা চিনির কেজি ৫৫ টাকা এবং প্যাকেটজাত চিনি প্রতিকেজি ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৯৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাশেম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘অন্য বছরগুলোতে বাজেট ঘোষণার পর পরই বাজার যেমন অস্থির হয়ে উঠে, পণ্যের কৃত্রিম সংকট দেখা দেয়, এবার তেমনটি হয়নি। বাজারে যে প্রভাব পড়েছে তা যৎ সামান্যই।’ অন্য পণ্যগুলোর মধ্যে বাজারে পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের দাম কিছুটা বেড়েছে। দেশি পেঁয়াজ কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে ৩০ টাকা, রসুন ১০ টাকা বেড়ে ১৩০ টাকা, আদা ২০ টাকা বেড়ে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে এখন মিনিকেট চাল মানভেদে ৪২ টাকা থেকে ৪৪ টাকা। বিআর২৮ চাল প্রতি কেজি ৩৪ টাকা থেকে ৩৫ টাকা। সুগন্ধি চাল প্রতিকেজি একশ টাকা।

Please follow and like us:
2