বৃহঃ. ফেব্রু ২১, ২০১৯

প্রতিবছর নতুন বেকার হচ্ছে ৮ লাখ: সিপিডির তথ্য

প্রতিবছর নতুন বেকার হচ্ছে ৮ লাখ: সিপিডির তথ্য

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে চাহিদা অনুয়ায়ী কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি না হওয়ায় প্রতিবছর আট লাখ নতুন বেকার তৈরি হচ্ছে বলে জানিয়েছে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ-সিপিডি।
গতকাল রোববার সকালে ‘প্রবৃদ্ধি ও অগ্রাধিকার’ বিষয়ক এত সংলাপে সিপিডি এ তথ্য তুলে ধরে। সংস্থাটির ভাষ্য, গেল দশ বছরে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে অনেক উন্নয়ন হলেও কর্মসংস্থান বিহীন প্রবৃদ্ধি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর চাকরির ক্ষেত্রে বৈষম্যের চিত্রও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।
বিশ্বব্যাংকের তথ্যের বরাতে এক নিবন্ধে সিপিডি বলছে, প্রতি বছর দুই লাখ দশ হাজার নতুন মানুষ শ্রমবাজারে ঢুকছেন। কিন্তু বিপরীতে চাকরি তৈরি হচ্ছে মাত্র এক লাখ ৩০ হাজার।এছাড়া প্রতিবছর আট লাখ মানুষ বেকার হচ্ছে। প্রবৃদ্ধির সুবিধা সমান ভাবে বিতরণ না হওয়ায় বৈষম্য চরম আকার ধারণ করেছে। সিপিডি সংলাপে বক্তারা বলেন, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যখাতে সরকারের আরো বেশি নজর দেওয়া দরকার। প্রান্তিক পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা ভেঙ্গে পড়েছে। হাসপাতালগুলোতে অবকাঠামো উন্নয়ন হলেও তা ব্যবহারে স্বচ্ছতা নেই। বক্তারা আরো বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার আধুনিকীকরণ না হলে টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করতে কঠোর হতে হবে।
সরকারি অফিসে ৩৩৬৭৪৬টি পদ শূন্য : এদিকে সিপিডির এই তথ্য প্রকাশের দিনে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, সরকারের বিভিন্ন অফিস ও মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৭৪৬টি পদ শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ হাজার ৮৫৪টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্য পদ পূরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
গতকাল রোববার জাতীয় সংসদে মো. আনোয়ারুল আজীম (আনার) ও শামসুল হক টুকুর ভিন্ন ভিন্ন তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, ৩৭তম বিসিএস এর মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারের ১ হাজার ২৮৯টি পদে নিয়োগের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সুপারিশ করেছে। সুপারিশকৃত প্রার্থীদের প্রাক চাকরির বৃত্তান্ত যাচাই করার জন্য যথাযথ এজেন্সিকে অনুরোধ কর হয়েছে। প্রাক চাকরি যাচাই প্রতিবেদন, মুক্তিযোদ্ধা সনদ যাচাই ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়ার পর চূড়ান্ত নিয়োগ দেয়া হবে। তিনি বলেন, ৩৮, ৩৯, ৪০তম বিসিএস এর মাধ্যমে যথাক্রমে ২০২৪, ৪৭৯২ ও ১৯০৩ জন মোট ৮৭১৯টি বিভিন্ন ক্যাডারের শূন্য পদে নিয়োগের কাজ চলছে।
প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, সরকারি অফিস সমূহে শূন্য পদে লোক নিয়োগ একটি চলমান প্রক্রিয়া। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ এবং এর অধীন সংস্থাসমূহের চাহিদার প্রেক্ষিতে সরকারি কর্ম কমিশনের মাধ্যমে ১০ থেকে ১২ গ্রেডে (দ্বিতীয় শ্রেণি) শূন্য পদে জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে। ১৩ থেকে ২০ এর (তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণি) পদে স্ব স্ব মন্ত্রণালয়/বিভাগ/সংস্থা নিয়োগ বিধি অনুযায়ী করে থাকে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ ধারাবাহিকভাবে সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে নতুন পদ সৃজনের সম্মতি প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে মন্ত্রণালয় বা বিভাগ নিয়োগ বিধি অনুযায়ী ওই পদে জনবল নিয়োগের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করে থাকে। আদালতের কার্যক্রম শেষ না হওয়া এবং পদোন্নতি যোগ্যপ্রার্থী না পাওয়ায় কিছু শূন্য পদ পূরণ করা যায় না।

Please follow and like us:
0