পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে অ্যালিয়েনরা!

পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে অ্যালিয়েনরা!

Last Updated on

প্রত্যাশা ডেস্ক : পৃথিবীর বাইরের অন্যান্য গ্রহের অর্থাৎ ভিন গ্রহের প্রাণীদের বলা হয়ে থাকে, অ্যালিয়েন। বাস্তবে এখন পর্যন্ত ভিন গ্রহের প্রাণী বা অ্যালিয়েনের দেখা পাওয়া না গেলেও, ধারণা করা হয় অ্যালিয়েন রয়েছে। সেই ধারণা এবার আরো জোড়ালো করল মহাকাশ থেকে আগত বেশ কিছু রেডিও সংকেত। তাহলে কি সত্যিই অ্যালিয়েনের অস্তিত্ব রয়েছে?
গবেষকরা সম্প্রতি ৫০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূর থেকে আগত বেশ কিছু রেডিও সংকেত পেয়েছেন। যেহেতু এই সংকেতগুলো এসেছে ভিন্ন সৌরজগৎ থেকে অর্থাৎ ৫০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূর থেকে, সেহেতু সেখানে থেকে কি ভিন গ্রহের প্রাণীরা এসব সংকেতের মাধ্যমে পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে? এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে গবেষকদের মনে।
দ্য কানাডিয়ান হাইড্রোজেন ইনটেনসিটি ম্যাপিং এক্সপেরিমেন্ট টেলিস্কোপ ব্যবহার করে এই বেতার তরঙ্গগুলো শণাক্ত করা হয়েছে। বিস্ময়কর ঘটনা হলো, ৫০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরের একটি গ্যালাক্সি থেকে এসব রেডিও সিগন্যাল বা বেতার তরঙ্গগুলো এসেছে প্রতি ঘণ্টায় ১টি করে, টানা ৪দিন ধরে। তারপর বন্ধ থেকেছে ১২ দিন। এরপর আবার এসেছে। এই প্রক্রিয়াটির পুনারাবৃত্তি হয়েছে ১৬.৩৫ পরপর এবং এভাবে পর্যায়ক্রমে চলেছে ৪০৯ দিন।
এসব তরঙ্গের উৎপত্তিস্থলটা যদিও অজানা কিন্তু অনেকেই মনে করছেন, এর মাধ্যমে অ্যালিয়েনরা পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে। তবে এ ধারণা উড়িয়ে দিয়েছেন ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) গবেষকরা।
এমআইটির গবেষকরা এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘এসব সংকেত অ্যালিয়েনদের হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। কারণ সংকেতগুলো মহাবিশ্বের চূড়ান্ত স্কেলগুলোতে ঘটা কোনো এনার্জির লক্ষণ। এমনকি অত্যন্ত বুদ্ধিমান প্রজাতিরও এ ধরনের এনার্জি উৎপাদন করার সম্ভাবনা খুবই কম। আর এখন পর্যন্ত কোনো শনাক্তকরণ পদ্ধতি নেই যা প্রমাণ দিতে পারে যে, বেতার তরঙ্গগুলো অ্যালিয়েনদের সৃষ্টি।’
এসব বেতার তরঙ্গ মাত্র কয়েক মিলি সেকেন্ড স্থায়ী ছিল। তাই কোথা থেকে এসেছে তা সঠিকভাবে নির্ধারণ করাটা বেশ কঠিন।

Please follow and like us:
3
20
fb-share-icon20
Live Updates COVID-19 CASES