শুক্র. সেপ্টে ২০, ২০১৯

পাঞ্জাবির দাম এক সপ্তাহে বেড়ে দ্বিগুণ, উত্তরা আড়ং বন্ধ

পাঞ্জাবির দাম এক সপ্তাহে বেড়ে

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : এক সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বাড়িয়ে ৭৩০ টাকার পাঞ্জাবি ১৩০৭ টাকায় বিক্রির অভিযোগে তৈরি পোশাকের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড আড়ংয়ের উত্তরা ফ্ল্যাগশিপ স্টোরকে ২৪ ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। পাশাপাশি আউটলেটটিকে সাড়ে চার লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে আড়ং কর্তৃপক্ষ।
একজন ভোক্তার অভিযোগ পেয়ে গতকাল সোমবার উত্তরা তিন নম্বর সেক্টরে আড়ংয়ের বিক্রয়কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে পণ্যের দাম বাড়ানোর অনিয়মের প্রমাণ পায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।
অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার সাংবাদিকদের বলেন, “গত ২৫ মে যে পাঞ্জাবিটি ভ্যাটসহ ৭৩০ টাকা বিক্রি করা হচ্ছিল, সেটিই ৩১ মে তারা ১৩০৭ টাকায় বিক্রি শুরু করেছে।
“ওই পোশাকের ফেব্রিক এবং ডিজাইন একই। এটি ভোক্তার সঙ্গে বড় ধরনের প্রতারণা। আড়ংয়ের মতো একটি নামি প্রতিষ্ঠানের এ ধরনের কাণ্ড দেখে খুব কষ্ট পেয়েছি। এটা বড় ধরনের নৈরাজ্য।” অভিযোগকারী মোহাম্মদ ইব্রাহীম হোসেন বলেন, গত ২৫ সে তিনি উত্তরা আড়ং থেকে বেশ কিছু পণ্য কেনেন। সেখানে একটি পাঞ্জাবি ছিল, যার দাম ছিল ৭০০ টাকার চেয়ে কিছুটা বেশি। “পরে ৩১ তারিখে আবার সেই পাঞ্জাবি কিনতে আসলে তারা দাম দেখায় ১৩০০ টাকার চেয়ে একটু বেশি।” এ বিষয়ে জানতে একটি বার্তাসংস্থার পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় আড়ংয়ের চিফ অপারেটিং অফিসার (সিওও) মোহাম্মদ আশরাফুল আলমের সঙ্গে। তিনি বলেন, “শত শত পণ্যের মধ্যে এটা একটা ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেছে। সাধারণত কোনো উৎসবেই পণ্যের দাম বাড়ানো হয়না। দামটা নির্ধারিত হয় উৎপাদন খরচের সঙ্গে বিভিন্ন মার্জিন যোগ করে। সেই মার্জিনটা থাকে ফিক্সড। মূলত উৎপাদন খরচের ওপরেই আড়ংয়ের পণ্যের দাম নির্ধারিত হয়। “ভুলটা কোথায় হয়েছে সেটা বের করার চেষ্টা করছি। উৎপাদন খরচে ভুলটা হয়েছে হয়তো। কোন কারণে হয়েছে সেটা বের করার চেষ্টা করছি। ”

Please follow and like us:
2