নিরস্ত্রীকরণে জাতিসংঘের পদক্ষেপ শক্তিশালী করতে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা দ্বিগুণ করার দৃঢ় অঙ্গীকার

নিরস্ত্রীকরণে জাতিসংঘের পদক্ষেপ শক্তিশালী করতে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা দ্বিগুণ করার দৃঢ় অঙ্গীকার

প্রত্যাশা ডেস্ক : জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক পদক্ষেপসমূহ আরো শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা দ্বিগুণ করার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয়েছে। জাতিসংঘ সদরদপ্তরে চলমান ৭৫তম জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্রথম কমিটির (নিরস্ত্রীকরণ ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বিষয়ক) সাধারণ বিতর্কে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে গতকাল এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা। আজ জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
তিনি পারমাণবিক প্রযুক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার’ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদাত্ত আহবানকে পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, বিদ্যুৎ ও চিকিৎসা খাতে পারমানবিক শক্তির নিরাপদ ব্যবহার করছে বাংলাদেশ। রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের উদাহরণ টেনে স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, এর মাধ্যমে বাংলাদেশ পরমানবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের সুবিধাকেই কাজে লাগিয়েছে। এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে ‘আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি সংস্থা’র সর্বোচ্চ মান মেনে চলার প্রতি বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।
পারমাণবিকসহ পূর্ণ নিরস্ত্রীকরণের প্রতি বাংলাদেশের সূদৃঢ় প্রতিশ্রুতি এবং সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, এই নীতি-আদর্শ উৎসাহিত হয়েছে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণ থেকে। যে ভাষণে জাতির পিতা ‘বিশ্বে উত্তেজনা হ্রাস করা, অস্ত্র প্রতিযোগিতা সীমিত করা এবং পৃথিবীর প্রত্যেকটি স্থানে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নীতি জোরদার করার’ -বিষয়ে সকলকে সমবেত হয়ে কাজ করার আহবান জানিয়েছিলেন।
রাবাব ফাতিমা বলেন, পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি, পারমাণবিক অস্ত্রের বিস্তার রোধ চুক্তি, রাসায়নিক অস্ত্র বিষয়ক সমঝোতা, জীবানু অস্ত্র বিষয়ক সমঝোতা, রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থা, ব্যাপকভিত্তিক পারমাণবিক পরীক্ষা নিষিদ্ধকরণ চুক্তি, অস্ত্র-বাণিজ্য চুক্তিসহ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সকল প্রধান নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক চুক্তি ও পদক্ষেপের সাথে যুক্ত রয়েছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এসব চুক্তি ও পদক্ষেপ রক্ষার ও অনুমোদনের জন্য সকল দেশের প্রতি আহবান জানান রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।
রাষ্ট্রীয় ও অ-রাষ্ট্রীয় পক্ষের দ্বারা হিংসাত্বক কাজে তথ্য-প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান ব্যবহারের বিষয়ে সতর্কতা উচ্চারণ করে তিনি বলেন, এর ফলে উন্নত এই ডিজিটাল পৃথিবীর আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা মারাত্বকভাবে বিপন্ন হচ্ছে। তিনি এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বৃহত্তর আন্তর্জাতিক সহযোগিতার আহবান জানান।
যোগাযোগ ও গবেষণার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু সাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করা হয়েছে উল্লেখ করে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, মহাকাশে এখন বাংলাদেশ আরও বেশী অংশীদারিত্ব নিয়ে প্রবেশ করেছে। তিনি মহাকাশকে শান্তিপূর্ণ, নিরাপদ, টেকসই, উন্মুক্ত, প্রবেশযোগ্য ও অস্ত্রমুক্ত রাখার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।
ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও উন্নত বিশ্ব গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে রাষ্ট্রদূত ফাতিমা বলেন, জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক পদক্ষেপসমূহ আরও শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ তার প্রচেষ্টা দ্বিগুণ করবে। কোভিড-১৯ জনিত কারণে সামাজিক দূরত্ব মেনে সদস্য দেশসমূহের সর্বনি¤œ উপস্থিতির মাধ্যমে স্বল্প-পরিসরে এবারের সাধারণ পরিষদের কমিটিসমূহের সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
নিত্যপণ্যের দামে মুখে হাসি নেই মানুষের
নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাকালে মানুষের আয় কমেছে ২০ শতাংশ। এটি সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিবিএসের হিসাব। আবার সরকারের বিপণন সংস্থা টিসিবির হিসাব বলছে, প্রায় সব নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে যারা বাজারে যাচ্ছেন জিনিসপত্র কিনতে, তাদের মুখে হাসি নেই। মুখ গোমড়া করে বাজার থেকে ফিরছেন অধিকাংশ মানুষ। কারণ, আয় দিয়ে সংসারের প্রয়োজন মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। মাছ, মাংস তো দূরে থাক, সংসারের চাহিদা অনুযায়ী সবজিও কিনতে পারছেন না অনেকে। এক বছর আগে ২০০ টাকায় যে পরিমাণ সবজি পাওয়া যেতো, এখন সেই সবজি কিনতে ৬০০ টাকা লাগছে। এক বছর আগে যে আলু ২০ টাকায় পাওয়া যেতো, সেই আলু কিনতে ৫০ থেকে ৬০ টাকা খরচ করতে হচ্ছে। যে চাল ৪০ টাকায় পাওয়া যেতো, তা কিনতে ৬০ টাকা খরচ করতে হচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকার বাসিন্দা খন্দকার হাসান শাহরিয়ার বলেন, ‘বাজারে জিনিসপত্রের দাম শুনলে সবারই রাগ ওঠে। কিন্তু চুপচাপ থাকতে হয়। এভাবে চলতে থাকলে সীমিত আয়ের মানুষ অচিরেই পুষ্টিহীনতায় ভুগতে শুরু করবে।’ তিনি বলেন, ‘নিত্যপণ্যের দাম এভাবে বেড়ে যাওয়ায় আয় কমে যাওয়া মানুষের বেশি সমস্যা হচ্ছে। বাজার থেকে ফেরার পথে অনেককেই বাজারসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বকাঝকা করতেও শোনা যায়।’ দরিদ্র মানুষের দৈনিক আয়ের বড় অংশ খরচ হয় চাল কিনতে। সরু ও মাঝারি চালের মূল ভোক্তা মধ্য ও নি¤œ-মধ্যবিত্তরা। সবাই চাপে রয়েছেন।
বাজারের তথ্য বলছে, দরিদ্র মানুষের নিত্যদিনের বাজারের তালিকায় থাকে চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ ও আলু। এখন সব কটির দামই বাড়তি। মোটা চালের দাম এখন গত তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। দুই মাসে অনেকটা লাফিয়ে বেড়েছে ভোজ্যতেলের দাম। পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকা। লাগামহীনভাবে বেড়েই চলেছে আলুর দাম, যা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। টিসিবি’র তথ্য বলছে, গত বছরের তুলনায় এবার আলুর দাম বেড়েছে ১১১ শতাংশের বেশি। শুধু আলুর দামই যে বেড়েছে তা নয়, বাড়ছে অন্যান্য জিনিসপত্রের দামও। সবজিসহ বেশকিছু পণ্যের দাম বেড়েছে স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে তিনগুণ। জিনিসপত্রের বাড়তি এই দাম নিয়ে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে অনেকেই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। একজন লিখেছেন—‘কাঁচা বাজারে গিয়েছিলাম, মনে হচ্ছিল স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে খোলা বাজারে।’ অপূর্ব রানা লিখেছেন, ‘কাঁচা বাজারের কী একটা অবস্থা!!! কীভাবে চলছে নি¤œ ও মধ্যবিত্তের দিনকাল? কারও কোনও ভাবনা নেই, কারও কোনও দায়িত্ব নেই। আহারে সোনার বাংলা।’ এছাড়া অনেকেই আলু নিয়ে, নিত্যপণ্যের বাজারের মূল্য নিয়ে বিদ্রƒপ করে পোস্ট দিচ্ছেন।
বাজার থেকে জিনিসপত্র কিনে বাসায় ফিরে আসার পর অনেকের সংসারে অশান্তি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাজধানীর মানিক নগর এলাকার বাসিন্দা গোলাম কিবরিয়া। তিনি বলেন, ‘দুই হাজার টাকা নিয়ে এত কম সদায় আনার কারণে বউ অবিশ্বাস করতে শুরু করেছে। জিনিসপত্রের দাম বাড়ার কারণে বাজারে মুখের হাসি বন্ধ হয়, বাসায় এসেও হাসি আসে না।’ একই এলাকার বাসিন্দা আবদুর রশিদ বলেন, ‘যা আয় হয়, তার সবই চলে যায় নিত্যপণ্যের বাজার করতেই।’ জিনিসপত্র কেনার পর হাতে আর কোনও টাকা থাকে না বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘এত খারাপ সময় এর আগে কখনও আসেনি তার।’
বাজারের তথ্য বলছে, শিম, টমেটোসহ সাত ধরনের সবজির দাম শতকের ঘরের ওপরে রয়েছে। বাজারে ভালো মানের বেগুন কিনতে লাগছে ১৪০ টাকা কেজি, উচ্ছে বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা কেজি। কাঁচামরিচের কেজি ৩০০ টাকার ওপরে।
এ প্রসঙ্গে বেসরকারি চাকরিজীবী আশিকুর রহমান ইসলাম বলেন, ‘বৃষ্টির অজুহাতে সবজির দাম বেশি। চালের দাম বেশি কারণ ছাড়াই।’ তার আয়ের চেয়েও ব্যয় বেশি করতে হচ্ছে বলে জানান।
প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের ধাক্কায় দোকানপাট, শিল্প-কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চাকরি হারিয়েছেন অসংখ্য মানুষ। অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মী ছাঁটাই না করলেও কমিয়েছে কর্মীদের বেতন। ফলে করোনার আগে মানুষের যে আয় ছিল, করোনার প্রভাবে সেই আয় কমে গেছে। আয় কমে যাওয়ায় শহর ছেড়ে গ্রামমুখী মানুষের স্রোতও দেখা গেছে গত কয়েক মাসে।
বেসরকারি দুটি গবেষণা সংস্থা পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (বিআইজিডি) সাম্প্রতিক এক জরিপে দেখা গেছে, করোনার প্রভাবে দেশের ৭০ শতাংশ দরিদ্র মানুষের আয় কমে গেছে। সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) জরিপে দেখা গেছে, করোনাকালে দেশে নতুন করে এক কোটি ৬৩ লাখ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে গেছে।
বিআইডিএসের তথ্য বলছে, একজন দরিদ্র মানুষ যদি ১০০ টাকা আয় করে, তার মধ্যে ৬০ টাকাই খরচ হয় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পেছনে।
এ প্রসঙ্গে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, ‘বৃষ্টি, বন্যা ও ফেরি বন্ধ হওয়াসহ নানা কারণে সবজির দাম অস্বাভাবিক। দাম অস্বাভাবিক হওয়াতে সবার নাভিশ্বাস উঠেছে।’ তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে যখন সবার আয় কমেছে, তখন সব জিনিসের দাম বেড়েছে। এটা মরার ওপর খাঁড়ার ঘা। অতি মুনাফাখোরদের নিয়ন্ত্রণ করার কোনও ব্যবস্থা না থাকার কারণে সীমিত আয়ের মানুষ কষ্টের মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন।’

Please follow and like us: