নিজের বিচার চাইলেন ট্রাম্প

নিজের বিচার চাইলেন ট্রাম্প

প্রত্যাশা ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তিনি নিজেই তার বিচার চান। গত শুক্রবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স টিভির ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইউক্রেনের হস্তক্ষেপের একটি মিথ্যা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব প্রচারের চেষ্টা করেন। এর আগে বৃহস্পতিবার কংগ্রেসের তদন্ত দলের কাছে হোয়াইট হাউজের প্রাক্তন রাশিয়া বিশেষজ্ঞ ফিয়োনা হিল এই তত্ত্বকে ‘মিথ্যা বর্ণনা’ বলে মন্তব্য করেছিলেন।
ফিয়োনা অভিশংসন শুনানিতে তদন্ত দলকে বলেছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য ট্রাম্প ইউক্রেনকে ঘুষ দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।সেই অভিযোগ থেকে প্রেসিডেন্টকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে রিপাবলিকানরা। এ জন্য তারা মার্কিন নির্বাচনে ইউক্রেনের হস্তক্ষেপের একটি ‘মিথ্যা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’ প্রচার করছে। রিপাবলিকানদের এটা বন্ধ করা উচিৎ। কারণ এটি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ‘হাতের খেলা’।
শুক্রবার ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প সেই ষড়যন্ত্র তত্ত্বই প্রচার করেছেন। এছাড়া তিনি চোখ কপালে ওঠার মতো কিছু দাবিও করেছেন।
ট্রাম্পের দাবির মধ্যে রয়েছে, তিনি গত গ্রীষ্মে ইউক্রেনের দুর্নীতির মূলোৎপাটনের চেষ্টা করেছিলেন। এছাড়া স্রেফ তার কারণেই হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থিদের ওপর দমন-পীড়ন চালাতে পারেনি চীন। ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গুলিয়ানি ‘অপরাধের বিরুদ্ধে সময়ের সবচেয়ে বড় যোদ্ধা’ বলেও দাবি করেছেন তিনি। কংগ্রেসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ছারপোকার মতো পাগলাটে বলেও মন্তব্য করেছেন ট্রাম্প।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানান, তিনি চান তার বিরুদ্ধে অভিশংসন তদন্ত যেন বিচারের দিকে মোড় নেয়। কারণ বিচার হলে তিনি কংগ্রেসের গোয়েন্দা কমিটির প্রধান অ্যাডাম স্কিফ এবং ইউক্রেনকে ঘুষ দেওয়ার তথ্য ফাঁসকারীকে প্রশ্ন করতে পারবেন।
ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা তথ্য ফাঁসকারীকে ডাকতে চাই। প্রথম প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে আমি কাকে চাই আপনি জানেন। কারণ খোলাখুলি বলছি, আমি চাই বিচার হোক’।
ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন ও তার ছেলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে টেলিফোনে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জিলেনস্কিকে চাপ দিয়েছিলেন। এর জন্য তিনি ইউক্রেনে বাৎসরিক মার্কিন সামরিক সহায়তা বন্ধের হুমকি দিয়েছিলেন। এ অভিযোগেই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন তদন্ত শুরু করেছে ডেমোক্র্যাটরা।

Please follow and like us: