নায়িকাদের পাশে বেনেডিক্ট কাম্বারব্যাচ

বিনোদন ডেস্ক : ‘#মিটু’ ও ‘টাইমস আপ’ ক্যাম্পেইনের সূচনাই হয়েছে সুবিচারের পক্ষে আন্দোলন থেকে। এই আন্দোলনে কর্মক্ষেত্রে নারীর প্রতি সহিংসতা, যৌন নিপীড়ন ও বৈষম্য রোধে হলিউডের নারী মডেল ও অভিনেত্রীরা এগিয়ে আসেন। তাঁদের সঙ্গে যুক্ত হন সমাজের বিভিন্ন পেশার নারী। হলিউডে নারী-পুরুষের পারিশ্রমিকের বৈষম্য রোধে এগিয়ে এসেছেন কয়েকজন পুরুষ তারকাও। এর মধ্যে আছেন টিভি সিরিজ ‘শার্লক হোমস’-এর অভিনেতা বেনেডিক্ট কাম্বারব্যাচ।
নারী-পুরুষের পারিশ্রমিকে বিশাল বৈষম্য আমাদের দেশেও আছে। এ সমস্যা ভোগ করছেন পাশের দেশের অভিনেত্রীরাও। সোনম কাপুর, দীপিকা পাড়ুকোন, প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার মতো তারকারা তা নিয়ে অনেক গলা ফাটিয়েছেন। প্রতিবাদ জানাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে বেছে নেন একসময়। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। প্রতিবাদ করে আবার সব ভুলে যান সবাই। কিন্তু দেরিতে হলেও হলিউডের এবার টনক নড়েছে। আগের সেই দিন এখন শেষ, ‘টাইমস আপ’ আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁরা এই বার্তা দিচ্ছেন। হলিউডের হাওয়া এখন যে দিকে বইছে, বেনেডিক্টও সেই পথে। নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য করা এই অভিনেতার কখনোই পছন্দ ছিল না। তবে এবার তিনি বিষয়টিকে আরও গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছেন। ‘অ্যাভেঞ্জারস: ইনফিনিটি ওয়ার’ ছবির এই তারকা রেডিও টাইমস নামের একটি ব্রিটিশ সাময়িকীকে জানান, যত দিন পর্যন্ত তাঁর নারী সহশিল্পীকে তাঁর সমান পারিশ্রমিক দেওয়া হবে না, তত দিন আর নতুন কোনো ছবিতে সাইন করছেন না তিনি। আর এটি কোনো কথার কথা নয়। বেনেডিক্ট সত্যি তা-ই করবেন। তিনি স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘আমাকে যত দাও, ওকে তত দিতে হবে।’ এ ছাড়া বেনেডিক্ট আর তাঁর বন্ধু ও ব্যবসায়িক অংশীদার অ্যাডাম মিলে নতুন একটি চলচ্চিত্র প্রযোজনার কথা ভাবছেন। ছবির গল্পটি পুরো নারীকেন্দ্রিক। একজন নারীর দৃষ্টিভঙ্গি থেকে পুরো চলচ্চিত্রের গল্প সাজানো হয়েছে। ২০১৮ সালের প্রথম দিন হলিউড অভিনেত্রী রিজ উইদারস্পুন, অ্যামেরিকা ফেরেরাসহ তিন শতাধিক প্রতিষ্ঠিত নারী ‘টাইমস আপ’ নামের নতুন এক উদ্যোগের ঘোষণা দেন। কর্মক্ষেত্রে নারীর সঙ্গে বেতনবৈষম্য ও যৌন হয়রানি রোধে নায়িকাসহ সমাজের বিভিন্ন পেশার নারীরা এই নতুন জোটে নাম লেখান। জোট গঠনের মাত্র ছয় দিনের মধ্যে ‘টাইমস আপ’-এর আইনি প্রতিরক্ষা তহবিলে জমা পড়ে ১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অবশ্য এ আন্দোলনের বীজ বপন হয়েছে আরও আগে। গত বছর অক্টোবরে দ্য নিউইয়র্ক টাইমস ও দ্য নিউইয়র্কার পত্রিকা ৬৫ বছর বয়সী হলিউড প্রযোজক হার্ভি ওয়াইনস্টিনের যৌন কেলেঙ্কারির খবর প্রকাশ করে। এরপর হার্ভির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তোলেন কয়েকজন অভিনেত্রী। হার্ভির এই কেলেঙ্কারি ফাঁস হওয়ার পর সারা বিশ্বে ঘটে যাওয়া যৌন হয়রানির ঘটনাগুলো সামনে আসতে শুরু করে। যে নারী ও পুরুষেরা যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন, তাঁরা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ‘#মিটু’ দিয়ে নিজেদের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা প্রকাশ করতে শুরু করেন। এর ধারাবাহিকতায় বছরের শুরুতে হলিউডের কর্মজীবী নারীরা চালু করেন ‘টাইমস আপ’ প্রচারণা। অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, গিনেথ প্যাল্ট্রো, অ্যাশলে জড, কারা ডালাভিনেন, কেট বেকিনসেল, লি সিডু, সালমা হায়েক, জেনিফার লরেন্স, হিদার গ্রাহামসহ অনেক অভিনেত্রী আর মডেলকে বিভিন্ন সময় অনৈতিক শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেন হার্ভি। এমনকি বলিউডের তারকা ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকেও নিজের শিকার বানাতে চেয়েছিলেন। পরে অবশ্য তা পারেননি। গত বছর অভিনেত্রী রোজ ম্যাকগোয়ানও টুইটারে হার্ভির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। এর মধ্যে ব্রিটিশ মডেল ও অভিনেত্রী কারা ডালাভিনেন হার্ভির যৌন নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে ইনস্টাগ্রামে একটি দীর্ঘ পোস্ট দেন।

Please follow and like us:
0