শুক্র. সেপ্টে ২০, ২০১৯

দশগুণ বেশি সন্মানি নেন আল-আরাফাহ্’র পরিচালকরা

দশগুণ বেশি সন্মানি নেন আল-আরাফাহ্’র পরিচালকরা

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেশির ভাগ ব্যাংকের পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ যে টাকা নেন তার থেকে প্রায় দশগুণ বেশি টাকা নেন আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের পরিচালকরা। ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকও (এমডি) বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন পারিতোষিক-বাবদ তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর চেয়েও বেশি টাকা নিচ্ছেন। চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে (জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত) পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলো থেকে পরিচালকদের সম্মানী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন পারিতোষিকের তথ্য পর্যালোচনা করে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে তালিকাভুক্ত বেশির ভাগ ব্যাংক পরিচালকদের সম্মানী বাবদ খরচ করেছে দুই থেকে ১০ লাখ টাকার মধ্যে। সেখানে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক পরিচালকদের সম্মানী-বাবদ দেয়া হয়েছে প্রায় ৫২ লাখ টাকা। পরিচালকদের সম্মানী-বাবদ এমন বিপুল অঙ্কের টাকা খরচ করা ‘অনৈতিক’ বলছেন অর্থনীতিবিদ ও বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, ব্যাংক খাতে যেসব অনিয়ম হচ্ছে তার বেশির ভাগের সঙ্গে পরিচালকরা যুক্ত। পরিচালকদের অনৈতিক সুবিধার কারণে ব্যাংক খাতে নাজুক অবস্থা বিরাজ করছে। সম্মানী-বাবদ একটি ব্যাংক থেকে তিন মাসে পরিচালকদের ৫০ লাখ টাকার ওপরে নিয়ে যাওয়া কিছুতেই স্বাভাবিক হতে পারে না। তথ্য পর্যালোচনায় আরও দেখা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ, এ তিন মাসে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ নিয়েছেন ৫১ লাখ ৭৭ হাজার ২৭৭ টাকা। গত বছরের (২০১৮) জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ব্যাংকটি থেকে পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ নেন ৩৮ লাখ ৮৭ হাজার ৬৪৭ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলায় চলতি বছরের তিন মাসে ব্যাংকটি থেকে পরিচালকরা বেশি নিয়েছেন ১২ লাখ ৮৯ হাজার ৬৩০ টাকা। পরিচালকদের পাশাপাশি ব্যাংকটি থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিচ্ছেন ব্যবস্থাপনা পরিচালকও। আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরমান আর চৌধুরী চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত সময়ে বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন পারিতোষিক-বাবদ ব্যাংক থেকে নিয়েছেন ৬৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এ হিসাবে গড়ে প্রতি মাসে তিনি ব্যাংক থেকে নিয়েছেন ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। গত বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পেছনে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের খরচ হয়েছিল ৫৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। অর্থাৎ পরিচালকদের পাশাপাশি ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পেছনেও চলতি বছরে ব্যাংকটির অর্থ খরচের পরিমাণ মোটা অঙ্কে বেড়েছে। পর্যালোচনায় দেখা যায়, তালিকাভুক্ত ৩০ ব্যাংকের মধ্যে চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকসহ ১৫টির পরিচালকদের সম্মানী নেয়ার পরিমাণ বেড়েছে। বিপরীতে সমান সংখ্যক ব্যাংকের পরিচালকদের সম্মানী নেয়ার পরিমাণ গত বছরের তুলনায় কমেছে। ব্যাংক থেকে পরিচালকদের সম্মানী নেয়ার ক্ষেত্রে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক খাতের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান ইসলামী ব্যাংক। চলতি বছরের তিন মাসে এ ব্যাংকের পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ নিয়েছেন ২১ লাখ ৯৪ হাজার ৫২ টাকা। গত বছরের প্রথম তিন মাসে এর পরিমাণ ছিল আট লাখ ৫৯ হাজার ৩৩৭ টাকা। অর্থাৎ চলতি বছরে ব্যাংকটির পরিচালকদের সম্মানী-বাবদ খরচ হয়েছে আগের বছরের তুলনায় প্রায় তিনগুণ। ব্যাংকটিরও পরিচালকদের পাশাপাশি ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন পারিতোষিক-বাবদ খরচ বেড়েছে। ২০১৮ সালের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন পারিতোষিক বাবদ ব্যাংকটির খরচ হয় ২৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যা চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে বেড়ে হয়েছে ৪০ লাখ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় ব্যবস্থাপনা পরিচালকের জন্য ব্যাংকটির খরচ বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। পরিচালকদের সম্মানী নেয়ার ক্ষেত্রে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এনসিসি ব্যাংক। ব্যাংকটির পরিচালকরা চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে সম্মানী-বাবদ নিয়েছেন ১৬ লাখ ৪ হাজার ৫৮৩ টাকা। গত বছরের প্রথম তিন মাসে পরিচালকদের সম্মানী-বাবদ ব্যাংকটির খরচ হয় ১১ লাখ ৭৭ হাজার ৩৯৪ টাকা। ব্যাংক থকে সম্মানী-বাবদ সবচেয়ে কম টাকা নিচ্ছেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পরিচালকরা। চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ব্যাংকটির পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ নিয়েছেন ৩৫ হাজার ৯৪৫ টাকা। ২০১৮ সালের জানুয়ারি-মার্চ সময়ে ব্যাংকটির পরিচালকরা সম্মানী-বাবদ নেন ৬৫ হাজার ৫০০ টাকা। অর্থাৎ কম টাকা নেয়ার পাশাপাশি চলতি বছর ব্যাংকটির পরিচালকদের খরচও কমেছে। ডিএসই’র এক সদস্য নাম প্রকাশ না করে বলেন, ব্যাংকের দুরবস্থার কারণে এখন পুঁজিবাজারে সংকট দেখা দিয়েছে। ব্যাংকগুলো থেকে শেয়ারহোল্ডাররা প্রত্যাশিত লভ্যাংশ পাচ্ছেন না। অথচ পরিচালকরা ঠিকই বিভিন্নভাবে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে যাচ্ছেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উচিত ব্যাংক থেকে পরিচালকদের টাকা নেয়ার বিষয়টি কঠোরভাবে তদারকি করা।

Please follow and like us:
2