রবি. জানু ১৯, ২০২০

দলের দুর্দশা, অধিনায়কত্ব ছাড়তে প্রস্তুত মালিঙ্গা

দলের দুর্দশা, অধিনায়কত্ব ছাড়তে প্রস্তুত মালিঙ্গা

Last Updated on

ক্রীড়া ডেস্ক : প্রথম ম্যাচটাই শুধু বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল। কিন্তু পরের দুই ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে নিজেদের শক্তিমত্তা বেশ ভালোই দেখিয়ে দিয়েছে ভারত। কোহলিদের আটকানোর কোনো মন্ত্রই যেন জানা ছিল না লাসিথ মালিঙ্গাদের কাছে। ২-০ ব্যবধানে সিরিজ হেরে লঙ্কান অধিনায়ক বলছেন, প্রয়োজনে দায়িত্ব ছাড়তে প্রস্তুত তিনি।
ওয়ানডে ও টেস্ট খেলা ছেড়ে দিলেও এখনো দেশের হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলে যাচ্ছেন মালিঙ্গা। ২০১৪ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যার অধিনায়কত্বে শিরোপা জিতেছিল লঙ্কানরা, সে অধিনায়ক আবারও দলের হাল ধরে টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কাকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন, এমনটাই আশা করা হয়েছিল। কিন্তু প্রত্যাশার সঙ্গে বাস্তবতার মেলবন্ধন হয়েছে সামান্যই। তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ তারা সম্প্রতি পেয়েছে, ভারতের সঙ্গে ২-০ সিরিজে হেরে। গোটা সিরিজে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে পারেননি মালিঙ্গা। একটা উইকেটও নিতে পারেননি।
ফলে নিজেই ব্যর্থতার দায় মাথায় নিয়ে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব ছাড়তে চাইছেন, ‘আমরা ২-০ ব্যবধানে সিরিজ হেরেছি। আমাকে আরও ভালো খেলতে হবে। কেননা আমি টি-টোয়েন্টি খেলার দিক দিয়ে দলের মধ্যে সবচেয়ে অভিজ্ঞ। কিন্তু আমি এই টুর্নামেন্টে একটা উইকেটও পাইনি। যে কারণে দলগতভাবে আমাদের অবস্থা এত খারাপ। আমি যেহেতু দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ, পারফর্ম করার চাপটাও আমার ওপর সবচেয়ে বেশি। আমি দলের হয়ে উইকেট নেওয়ার প্রধান ভরসা। ম্যাচ জিততে হলে প্রথম ছয় ওভারের মধ্যে এক-দুটি উইকেট নিতে হয়, না হলে ম্যাচ জেতা যায় না। এ সিরিজে আমরা সেটা করতে পারিনি।’
২০১৮ সালে আবারও যখন মালিঙ্গাকে টি-টোয়েন্টির অধিনায়ক বানানো হয়, চোখ কপালে উঠে গিয়েছিল অনেকের। কারণ, বিভিন্ন চোটে জর্জরিত মালিঙ্গা নিজেই তখন নিয়মিত খেলতে পারছিলেন না। তা ছাড়া দলে বিভাজন সৃষ্টির অভিযোগ তুলে দুই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস ও থিসারা পেরেরাকে দলে রাখেননি মালিঙ্গা। অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের অভাবও ভোগাচ্ছে লঙ্কানদের। এখন দেখা যাক, লঙ্কান বোর্ড আসলেই মালিঙ্গাকে অধিনায়কত্বের পদ থেকে অপসারণ করে কি না।

Please follow and like us:
3