বুধ. ডিসে ১১, ২০১৯

জ্বালানি দক্ষতা বৃদ্ধি প্রকল্পে পরামর্শক মিৎসুবিশি

জ্বালানি দক্ষতা বৃদ্ধি প্রকল্পে পরামর্শক মিৎসুবিশি

Last Updated on

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : জ্বালানি দক্ষতা ও সংরক্ষণ বৃদ্ধি কার্যক্রমে অর্থায়ন প্রকল্পের কারিগরি সহযোগিতা দেওয়ার জন্য পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পাচ্ছে জাপানের বিখ্যাত মিৎসুবিশি রিচার্স ইনস্টিটিউট আইএনসি। এজন্য প্রতিষ্ঠানটিকে দিতে হবে মোট ৫ কোটি ৭৬ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। প্রকল্পটি জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে বাস্তবায়ন হবে।
এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব বুধবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। কমিটি অনুমোদন দিলে জাপানের মিৎসুবিশি রিচার্স ইনস্টিটিউট প্রকল্পের পরামর্শক হিসেবে কাজ করবে।
সূত্র জানায়, জ্বালানি সাশ্রয় ও দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে স্বল্প সুদে ঋণ দেওয়ার মাধ্যমে শিল্প মালিকদেরকে আগ্রহী করে তোলা এবং এ খাতে দক্ষ জনবল সৃষ্টি করার লক্ষ্যে জাইকা এবং বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (স্রেডা) কর্তৃক বাস্তবায়িত জ্বালানি দক্ষতা ও সংরক্ষণ বৃদ্ধি কার্যক্রমে অর্থায়ন প্রকল্পে কারিগরি সহযোগিতা দেওয়ার জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের অনুমোদনের প্রস্তাব স্রেডা কর্তৃক গত ৩০ মে বিদ্যুৎ বিভাগে পাঠানো হয়। সূত্র জানায়, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য জাইকা ও বাংরাদেশ সরকারের মধ্যে ২০১৬ সালের ২৯ জুন ঋণচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এতে জাইকার ঋণের পরিমাণ ১১ হাজার ৯৮৮ মিলিয়ন জাপনিজ ইয়েন। প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কাল ২০১৮’র জুলাই থেকে ২০২২’র জুন পর্যন্ত। প্রকল্পের কাজ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের জন্য অনুমোদিত টিএপিপি-তে পরামর্শক নিয়োগের সংস্থান রয়েছে।
সূত্র জানায়, প্রকল্পের কারিগরি সহযোগিতা দেওয়ার জন্য পরিমর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের জন্য স্রেডা কর্তৃক দেশের ৪টি পত্রিকায় দরপত্র আহ্বান করা হয়। এতে নির্দিষ্ট সময়ে অর্থাৎ ২০১৮ সালের ১৬ এপ্রিলের মধ্যে মোট ১০টি প্রতিষ্ঠান দরপত্র দাখিল করে। এরপর দরপত্র মূল্যায়নের জন্য প্রপোজাল এভ্যুলেশন কমিটি (পিইসি) ৫টি প্রতিষ্ঠানের একটি শর্টলিস্ট করে মূল্যায়ন প্রতিবেদন দাখিল করে। এতে জাইকাও অনুমোদন দেয়। জাইকার অনুমোদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৫ প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে রিয়োস্টে ফর প্রপোজাল (আরএফপি) প্রেরণ করে কারিগরি ও আর্থিক প্রস্তাব আহ্বান করা হয়। ওই ৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে জাপানের মিৎসুবিসি রিচার্স ইনস্টিটিউট এবং ভারতের একটি যৌথ কোম্পানি তাদের প্রস্তাব দাখিল করে। একই দিন পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের সামনে প্রস্তাবগুলো উন্মুক্ত করা হয়। এতে জাপানের মিৎসুবিসি রিচার্স ইনস্টিটিউট ৯২ দশমিক ৪০ পয়েন্ট পেয়ে প্রথম হয়। অন্যদিকে ভারতের প্রতিষ্ঠাটি পায় ৮৬ দশমিক ১৭ পয়েন্ট।
কারিগরি মূল্যায়নে দুটি প্রতিষ্ঠানই রেসপনসিভ হয়। পরবর্তীতে কারিগরি প্রতিবেদনের ওপর জাইকার সম্মতির জন্য পাঠানো হলে সংস্থাটি কারিগরি মূল্যায়ন প্রতিবেদনে সম্মতি দেয়। সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি অনুমোদন দিলে মিৎসুবিসি রিচার্স ইনস্টিটিউট প্রকল্পটির পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করবে।

Please follow and like us:
0