রবি. জুলা ২১, ২০১৯

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে গণফোরামের বিক্ষোভ

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে গণফোরামের বিক্ষোভ

Last Updated on

নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো এবং গণবিরোধী বাজেটের প্রতিবাদে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে গণফোরাম। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক তথ্যমন্ত্রী গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাঈদ, অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া, সংসদ সদস্য (এমপি) মোকাব্বির খান, সভাপতিম-লীর সদস্য আমসা আমিন প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকারের জনগণের কাছে কোনো জবাবদিহিতা ও দায়বদ্ধতা নাই। তাই সরকারের ভ্রান্ত নীতি এবং ব্যবসায়ীদের অর্থনৈতিকভাবে লাভবান করতেই বারবার গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হচ্ছে। অথচ বিশ্ববাজারে সম্প্রতি গ্যাসের মূল্য কমেছে। সরকার গ্যাসের মূল্য বাড়িয়ে জনগণকে ভোগান্তিতে ফেলেছে। এমন অবস্থায় গণআকাক্সক্ষাকে উপেক্ষা করতে পারে না গণফোরাম, তাই দেশব্যাপী গতকাল মঙ্গলবার এ সমাবেশ, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়। গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া সংসদের ভেতরে-বাইরে সরকারবিরোধী অবস্থান জোরালো করার কথা বলেন । তিনি বলেন, গণফোরাম জনগণের দল। আজকে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ করতে আমরা এখানে দাঁড়িয়েছি। আর কেউ না দাঁড়ালেও আমরা দাঁড়াব। যেখানেই আমরা পারি, এক ইঞ্চি জায়গা পেলে আমরা এই সরকারের বিরোধিতা করব, আমরা এই সরকারের অন্যায়-অবিচার-অত্যাচারের বিরোধিতা করব। এটা সংসদে পারি সেখানে করব, সংসদের বাইরে করব, রাস্তায় করব, শহরে করব, গ্রামে করব। আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়া বলেন, এই সরকার নির্বাচিত সরকার নয়। সেজন্য তারা গণবিরোধী সব সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। গ্যাস এবং বিদ্যুতের দাম বাড়িয়ে আমরা যারা শোষিত আমাদের পকেট থেকে আট হাজার কোটি টাকা নিচ্ছে। তার চেয়ে তারা যদি একটা প্রজেক্টে আট হাজার কোটি টাকা কম চুরি করত তাহলে আমাদেরকে এই অর্থ দিতে হত না, তাহলে বিদ্যুতের দাম বাড়ত না, গ্যাসের দাম বাড়াতে হত না। এই সরকারের প্রত্যেক পদক্ষেপে দুর্নীতি, অদক্ষতা এবং তারা যে দেশ পরিচালনার ব্যাপারে অক্ষম এটার প্রমাণ পাচ্ছি। সমাবেশে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ সারা পৃথিবীতে ধর্ষকের দেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এখানে শিশু হত্যা হয়, স্ত্রী হত্যা হয়, এখানে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্মম নির্যাতন করা হয়। কতগুলো ব্যাংক ডাকাত, কতগুলো ভোট ডাকাত মিলে সংসদ দখল করে জনগণের বিরুদ্ধে বাজেট দিয়েছে এবং নিত্য-নৈমত্তিক সব কিছুর দাম বাড়াচ্ছে। হাসিনাকে জনগণ আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না, একমাত্র সমাধান হাসিনামুক্ত বাংলাদেশ। সমাবেশের পরে গণফোরামের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করেন। তাতে অংশ নেন দলের নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য জগলুল হায়দার আফ্রিক, মোকাব্বির খান, মহসিন রশিদ, আমসা আমিন, যুগ্ম সম্পাদক মোশতাক হোসেন, আফসারী আমিন আহমেদ প্রমুখ। একই সময়ে বিকল্পধারা বাংলাদেশ গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে এবং মাদকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে।

Please follow and like us:
2