কেন লেভেল প্লেইং ফিল্ড থাকবে না, ব্যাখ্যা দিলেন আ’লীগের খালিদ

কেন লেভেল প্লেইং ফিল্ড থাকবে না, ব্যাখ্যা দিলেন আ’লীগের খালিদ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘লেভেল প্লেইং ফিল্ড নাই’ স্বীকার করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বলেছেন, ‘রাজাকার-আলবদররা যতদিন এই দেশে নির্বাচনে অংশ নেবে, ততদিন এই দেশের নির্বাচনে লেভেল প্লেইং ফিল্ড থাকবে না।
স্বাধীনতাকামী মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা কখনই একজন রাজাকার-আলবদরের সাথে নির্বাচন করতে পারে না।
তিনি বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তিরা যাতে বাংলাদেশের কোনো জনপ্রতিনিধি না হতে পারে, বাংলাদেশের নেতৃত্ব দিতে না পারে-তার জন্য বাংলাদেশে আইন করতে হবে। তাদেরকে নির্বাচনের বাইরে রাখতে পারলেই বাংলাদেশে নির্বাচনে লেভেল প্লেইং ফিল্ড তৈরী হবে।
গতকাল বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের বোঁচাগঞ্জ পাক-হানাদার বাহিনী মুক্ত দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা-জনতার সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ফলে যেভাবে আইনের মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে, আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসলে সেভাবে আইন প্রতিষ্ঠা করা হবে যাতে রাজাকার-আলবদর-স্বাধীনতা বিরোধী এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা বাংলাদেশের কোনো নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করার চেষ্টা চলছে। স্বাধীনতা বিরোধী অনেককেই মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়া হচ্ছে। হয়তো একদিন তারা বলার চেষ্টা করবে-বাংলাদেশের স্বাধীনতার নেতৃত্ব দিয়েছিলো জামায়াতে ইসলাম। তাই তারা যাতে মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত না করতে পারে সেজন্য মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সঠিকভাবে লিপিবদ্ধ করে সংরক্ষণ করতে হবে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে। বোঁচাগঞ্জ শহীদ মিনার চত্বরে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বোঁচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রশাসক ফখরুল হাসান।
বক্তব্য রাখেন, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জাফরউল্লাহ, মুক্তিযোদ্ধা মহিদুল ইসলাম, আফজাল হোসেন লাবু, সামসুল ইসলাম, সেতাবগঞ্জ পৌর মেয়র আব্দুস সবুর, বোঁচাগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফরহাদ হাসান চৌধুরী ইগলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আফসার আলী প্রমুখ। এর আগে বোচাগঞ্জ পাক-হানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষে সকাল ৯টায় বোঁচাগঞ্জ শহীদ স্মৃতি স্তম্ভে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। সেখানে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠন, বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সেতাবগঞ্জ চিনিকল ও সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করে। এরপর একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে শোভাযাত্রাটি বোঁচাগঞ্জ পৌরশহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের এই দিনে পাক-হানাদার মুক্ত হয় দিনাজপুরের সীমান্তবেষ্টিত উপজেলা বোঁচাগঞ্জ।

Please follow and like us:
0