বুধ. ফেব্রু ২০, ২০১৯

অস্ট্রেলিয়ার বর্ষসেরা ক্রিকেটার কামিন্স

অস্ট্রেলিয়ার বর্ষসেরা ক্রিকেটার কামিন্স

Last Updated on

ক্রীড়া ডেস্ক : দীর্ঘ অপেক্ষার অবসান হলো। অভিষেকের সাত বছর পর অস্ট্রেলিয়ার বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন প্যাট কামিন্স। ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে এ বছর ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার পেয়েছেন কামিন্স। ২০১৯ সালের অ্যালন বোর্ডার মেডেলটি উঠেছে তার হাতে। দীর্ঘ অপেক্ষার পর অস্ট্রেলিয়ার মোস্ট ভ্যালুয়েবল ক্রিকেটারের স্বীকৃতি পেয়েছেন কামিন্স। দীর্ঘ সময় ইনজুরি, অন্যদের দাপট ও অফফর্মের কারণে সেরার মুকুট পাওয়া হয়নি তার। কিন্তু এবার দারুণ পারফরম্যান্সে আগেই শ্রেষ্ঠত্বের দাবি জানিয়ে রেখেছিলেন কামিন্স।
বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিততে কামিন্স ভোট পেয়েছেন ১৫৬টি। ৬ ভোট কম পেয়েছেন নাথান লায়ন। অ্যারন ফিঞ্চ ১৪৬, মার্কস স্টনিস ও উসমান খাজা সমান ১০২ এবং অ্যান্ড্রু টাই পেয়েছেন ৮৫ ভোট। ২০১১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অভিষেক হয় কামিন্সের। প্রথম ম্যাচেই পেয়েছিলেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। এবার তার হাতে অ্যালন বোর্ডার মেডেল। স্টিভেন স্মিথের পর সবচেয়ে কম বয়সে এই পুরস্কার জিতলেন কামিন্স। ২০১৫ সালে ২৫ বছর ২৩৯ দিন বয়সে ‘অ্যালান বোর্ডার মেডেল’ জিতেছিলেন স্মিথ। কামিন্স জিতলেন ২৫ বছর ২৭৯ দিন বয়সে।
এ মেডেল প্রাপ্তির মধ্য দিয়ে এলিট ক্লাবে প্রবেশ করেছেন কামিন্স। যেখানে আছেন স্টিভ ওয়াহ, গ্লেন ম্যাকগ্রা, ম্যাথু হেডেন, অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, রিকি পন্টিং, মাইকেল ক্লার্ক, শেন ওয়াটসন, স্টিভ স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নার। ২০১৪ সালে মিচেল জনসন পেসারদের মধ্যে সবশেষ এ মেডেল পেয়েছিলেন। ব্যাটসম্যানদের শ্রেষ্ঠত্ব ভেঙে কামিন্স এবার পেলেন বর্ষসেরা পুরস্কার। এছাড়া ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টির সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। ঘরোয়া ক্রিকেটের সেরা খেলোয়াড় ম্যাথু ওয়েড এবং ব্র্যাডম্যান তরুণ ক্রিকেটার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন উইল পুকোভক্সি। নিষেধাজ্ঞায় থাকা দুই ক্রিকেটার স্টিভেন স্মিথ ও ওয়ার্নারও পেয়েছেন ভোট। স্মিথ ১২ এবং ওয়ার্নার ১৪ ভোট পেয়েছেন। সোমবার মেলবোর্নের ক্রাউন ক্যাসিনোতে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটার, আম্পায়ার ও সংবাদকর্মীদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন বিজয়ীরা।

Please follow and like us:
0